প্রথম প্রেম - Prothom Prem । Valobashar Golpo - পর্ব ৬

 

প্রথম প্রেম - Prothom Prem । Valobashar Golpo - পর্ব ৬



প্রথম প্রেম - Prothom Prem । Valobashar Golpo - পর্ব ৬



বাবা- মাকে ছেড়ে বেঁচে থাকার মতো কঠিন কাজ দুনিয়াতে হয়ত আর নেই আর এই কঠিন কাজটাই যে আমাকে করতে হবে ।

আমার সামনেই আব্বু-আম্মুর কাফনে মোড়ানো লাশ রাখা । বাড়ি ভর্তি মানুষ কিন্তু দিন শেষে তো তারা সবাই চলে যাবে । আমরাও একা হয়ে যাবো ।


ছোট ছোট ব্যাপারে কেঁদে ভাসিয়ে ফেলা এই আমি আজ একটুও কাঁদতে পারছি না । খুব ইচ্ছে করছে চিৎকার করে বলতে ”বাবা-মা তোমরা ফিরে আসোনা” । কিন্তু আমি পারছি না । নিজেকে বড্ড অনুভূতিহীন মনে হচ্ছে ।

আব্বু- আম্মুর দাফন শেষ হয়েছে ঘন্টা দু’য়েক । বাকিরা সবাই চলে গেছে শুধু আমাদের পরিবারের কিছু লোক রয়ে গেছে ।

কিছুক্ষণ পরে খালামনি ও আংকেল আমার কাছে এলো আংকেল মামাকে গিয়ে বললো

—- আবির তো বড় হয়ে গেছে ভাইজান । কিন্তু আফরা ও তো এখনো ছোটো ওর দায়িত্ব কে নিবে? আবিরের বউ এলে তো ও বেশিদিন এখানে টিকতে পারবে না ।

উনি কিছুক্ষন থেমে আবার ও বললেন

—- দেখেন ভাইজান, নিবির যে আফরাকে পছন্দ করে না সেটা তো সবাই জানে তাই আফরা যে আপনাদের বাড়ি থাকতে পারবে না সেটা আমি জানি । তাহলে নিশ্চয় ওর দায়িত্ব আমাদের ঘারে এসেই পড়বে । আমি কিন্তু ওসব ঝামেলা নিতে পারবো না ।

আংকেলের কথা শেষ হতেই ভাইয়া চিৎকার করে বলে উঠলো

—- কাউকে নিতে হবে না আফরার দায়িত্ব । যতদিন আমি আছি ততদিন ওকে নিয়ে আপনাদের না ভাবলেও চলবে ।

আংকেল বেশ অপমানিত হলেন ভাইয়ার কথায় । নানীও মুখ বুঝে সব শুনছে । ওখানে আর এক মুহুর্ত না থেকে ঘরে চলে গেলাম গিয়ে দরজাটা লাগিয়ে দিলাম ।

নিজের আপন মানুষগুলোকেও আমার বড্ড অচেনা মনে হচ্ছে । সবারই এখন আমাকে বোঝা মনে হচ্ছে । একদিন হয়ত ভাইয়ারও আমাকে বোঝা মনে হবে ।

বাইরে থেকে সবাই দরজা খুলতে বলছে ।

—- তোমরা প্লিজ যাও এখান থেকে আমাকে একটু একা থাকতে দাও ।




আব্বু- আম্মুকে ছাড়া পুরো একদিন কেটে গেছে । তখন থেকে এখন পর্যন্ত কিছু মুখে তুলিনি আমি ।

—- একটু তো খেয়ে নে, মা । এভাবে না খেয়ে থাকলে তো অসুস্থ হয়ে যাবি ।

—- আমি খাবো না, মামি । তুমি খাবারটা রেখে এসো ।

মামিকে কথাটা বলেই ঘর থেকে বেরিয়ে এলাম । আমি একদমই ক্ষুদা সহ্য করতে পারিনা । কিন্তু আজ একদমই খেতে ইচ্ছে করছেনা । শরীরটাও বড্ড দুর্বল লাগছে । হঠাৎ মাথা ঘুরে পড়ে যেতেই কেউ আমায় ধরে ফেললো ।

চোখ খুলে দেখলাম মামি আর নিবির ভাইয়া বসে আছে । ভাইয়া হয়ত কোথাও গেছে ।

আমাকে উঠতে দেখেই নিবির ভাইয়া মামিকে খাবার আনতে বললো । মামিও খাবার আনতে চলে গেলো । নিবির ভাইয়া আমার পাশে বসে বললো

—-এভাবে না খেয়ে থাকলেই কী তোর বাবা,মা ফিরে আসবে? না খেয়ে শুধু শুধু নিজেকে কষ্ট দেওয়ার মানে কী, আফরা? তোর জন্য আবির ও না খেয়ে আছে  ।

—- আচ্ছা ভাইয়া খুব কী ক্ষতি হতো যদি বাবা মা আমাকেও তাদের সাথে নিয়ে যেত?

—- আফরা! তারা যখন তোকে সাথে নেয়নি তখন নিশ্চয় তারা চায় তুই এই দুনিয়ায় থাক । তোকে বাঁচতে হবে আফরা, আবিরের জন্য বাঁচতে হবে, নিজের জন্য বাঁচতে হবে, আমাদের জন্য বাঁচতে হবে ।

একটু পরে মামি আমার জন্য খাবার নিয়ে এলো । আমিও খেয়ে নিলাম । নয়তো আমার জন্য ভাইয়াও না খেয়ে থাকবে ।

বিকেলে আমাদের কিছু প্রতিবেশী এলো বাড়িতে । তারা এসেই বিভিন্ন কথা বলতে লাগলো ।

—- শোনো নিবিরের মা তোমরা বরং আফরার বিয়ে দিয়ে দাও । তাছাড়া কে নেবে ওর দায়িত্ব?

অন্য একজন বলে উঠলো

—- তাছাড়া তোমার ঘরেও তো জোয়ান একটা ছেলে আসে । আফরা তো ছোট, বলা যায় না যদি তারা কোনো অঘটন ঘটিয়ে ফেলে ।

উনার কথা শুনেই কেঁদে দিলাম । তখনই নিবির ভাইয়া বাড়িতে ঢুকছিল হয়তো সে সব কিছুই শুনেছে ।
নিবির ভাইয়া উনাদের সামনে গিয়ে বললো

—- আফরাকে নিয়ে এতটা ভাবার জন্য অনেক ধন্যবাদ । কিন্তু ওকে নিয়ে যদি আপনারাই সব ভেবে ফেলেন তাহলে আমরা কী করবো বলেন? আমাদের জন্য কিছু রাখেন ।
আর শোন আফরা একদম মানুষের এসব উল্টোপাল্টা কথায় কান দিবি না ।

তখনই আরেকজন বলে উঠলো

—- সবই বুঝলাম গো নিবিরের মা । শেষ পর্যন্ত এই ঝামেলা তোমাদের ঘাড়েই জুঁটবে । তোমার ছেলের তো ভাব খারাপ ।

আর কোনো কথা শোনার আগেই রুমে চলে গেলাম । ওখানে একপাতা ঘুমের ঔষধ ছিল । সেটা থেকে অনেকগুলো ঔষধ খেয়ে নিলাম । জানি আমি অনেক বড় পাপ করছি কিন্তু আমার কিছু করার নেই । আমি আর এসব সহ্য করতে পারছি না । আমি কারো ওপর ঝামেলা হয়ে থাকতে চাই না ।



চোখ খুলতেই নিজেকে হাসপাতালের বেডে আবিষ্কার করলাম । তখনই ভাইয়া ঠাস করে একটা চড় মারলো আমায় ।
প্রচন্ড কষ্ট পেলাম ঘটনাটায় । জীবনে প্রথম ভাইয়া আমার গায়ে হাত তুললো ।
একটু পরেই ভাইয়া আমার দুইগালে হাত রেখে বললো

—- মেরে ফেলবি আমায়, বনু । কেন এমন করলি? তুই জানিস না তোর কিছু হলে আমি বাঁচবো না । কেন লোকের কথায় নিজেকে শেষ করবি তুই? তুই নিজের যোগ্যতায় দেখিয়ে দিবি যে তুই আমাদের বোঝা না অহংকার ।



কেটে গেছে অনেকগুলো দিন । এখন আমি যথেষ্ট নরমাল ।
পড়াশোনায় ও বেশ মনোযোগ দিয়েছি । আম্মুর খুব শখ ছিল আমি ঢাবিতে পড়বো । সে অনুযায়ী প্রিপারেশন নিচ্ছি । সামনেই এডমিশন টেস্ট ।
নিবির ভাইয়াও এ ব্যাপারে খুব সাহায্য করে আমায় । একদিন উনি আমার সাথে একটুও খারাপ ব্যবহার করেন নি ।

অনেকদিন ঘর বন্দি ছিলাম । তাই আজ ঠিক করলাম মামাদের বাড়িতে যাবো ।

সকালে হাসপাতালে যাওয়ার সময় ভাইয়া আমায় মামা বাড়ি নামিয়ে দিয়ে গেলো ।

ভিতরেই এসে দেখলাম নিবির ভাইয়া আর কথা আপু একসাথে বসে কী যেন করছে । তাদেরকে একসাথে দেখেই পুরোনো ক্ষতটা যেন জেগে উঠলো । কিন্তু আমি সে সবকে পাত্তা দিলাম না ।

নিবির ভাইয়া যেন আমাকে দেখেও দেখলো না । আমিও কিছু না বলে ভেতরে ঢুকে গেলাম । কিন্তু মামিকে কোথাও পেলাম না । তাই নিবির ভাইয়াকেই গিয়ে জিঙ্গেস করলাম

—- ভাইয়া, মামি কই?

—- আম্মু তো মামার বাসায় গেছে ।

—- ওহ । তাহলে বরং আমি যায় ।

—- এখনই যাবি?

—- হুম । থেকেই কী করবো?

—- আচ্ছা যা ।

আমিও বেরিয়ে এলাম । নিবির ভাইয়া একবার জিঙ্গেস ও করলো না যে একা যেতে পারবো কিনা? অবশ্য করবেই কেন? কথা আপু সাথে থাকলে তো তার দিন দুনিয়ার খেয়াল থাকে না ।

বাসায় গিয়ে এখন একা বোর হওয়া ছাড়া কোন কাজ নেই । নিবির ভাইয়াদের বাসার কাছাকাছি একটা ছোটোখাটো একটা লেক আছে । তাই ভাবলাম ওখান থেকে ঘুরে আসি ।

যেই ভাবা সেই কাজ । একা একা লেকের পাড়ে হাটছি । এখন সকাল ১১ টা বাজে । এখন অফিস টাইম বলে খুব একটা ভিড় নেই । এখন মানুষ নেই বললেই চলে । কিন্তু বিকেল বেলা অনেক ভিড় থাকে । বাবার সাথে আগে অনেকবার এসেছি ।

কিছু সময় পরে আমার ফোনে একটা মেসেজ এলো
” একা একা থাকতে বুঝি খুব ভালো লাগে শুভ্রপরী”।

মেসেজটা ঐ প্রহরই পাঠিয়েছে । আজকাল আর এগুলো নিয়ে ভাবতে ইচ্ছে করে না । সব আবেগ গুলো যেন সময়ের সাথে সাথে হারিয়ে গেছে ।

হঠাৎ-ই আজানের শব্দ কানে এলো কখন যে এত সময় কেটে গেছে বুঝিনি । তাই বাড়ি যাওয়ার জন্য কিছুদূর এগিয়ে যেতেই দেখলাম নিবির ভাইয়া এদিকেই আসছে । উনার চোখ-মুখ অসম্ভব লাল হয়ে আছে । দেখেই বোঝা যাচ্ছে খুব রেগে আছে ।

উনি আমার কাছে এসেই বেশ জোরে একটা চড় মারলো । আমিও টাল সামলাতে না পেরে নিচে পড়ে গেলাম ।

উনি আমাকে তুলে আমার হাত ধরে বললেন

—- তোর কী মাথা খারাপ হয়ে গেছে, আফরা । বাড়ি থেকে বেরিয়ে যে এখানে আসবি বলে আসতে পারলি না? তুই বেড়োনোর আধ ঘন্টা পর যখন আরশিকে ফোন করে জানতে পারলাম তুই বাড়ি যাসনি তখন আমার কী অবস্থা হয়েছিল জানিস? দু-ঘন্টা কত খুঁজেছি তোকে? ফোনটাও তো ধরিস নি ।

আসলেই তখন আমার ভাইয়াকে বলে আসা উচিত ছিল । আর তখন মেসেজের জন্য ফোনটাও সাইলেন্ট করে রেখেছিলাম । কিন্তু আমায় নিয়ে উনার এত চিন্তা কেন?

—- চল তোকে বাড়ি দিয়ে আসি । আর সরি, এমন বিহেব করার জন্য ।

আমি কোনো কথা না বলে চুপ করে রইলাম ।
তখনই ভাইয়া এমন একটা কথা বললো যেটা শুনে আমি পুরো স্তব্ধ হয়ে গেলাম । ভাইয়া বললো

—- আমায় বিয়ে করবি? আফরা ।

(চলবে)

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url