Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo bangla golpo pdf bangla premer golpo bangla golpo chotoder bangla golpo book bangla golpo lyrics Romantic Love Story in Bengali Bengali Romantic Love Story Valobashar Golpo Valobashar Romantic Premer Golpo Bangla Bengali Romantic Story Bangla Love Story ভালোবাসার গল্প প্রেমের গল্প লাভ স্টোরি রোমান্টিক ভালবাসার গল্প বাংলা Premer Golpo Bangla বাংলা মিষ্টি প্রেমের গল্প Moner Rong.

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo
Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ২৭ Bangla Romantic Golpo bangla golpo pdf bangla premer golpo bangla golpo chotoder bangla golpo book bangla golpo lyrics Romantic Love Story in Bengali Bengali Romantic Love Story Valobashar Golpo Valobashar Romantic Premer Golpo Bangla Bengali Romantic Story Bangla Love Story ভালোবাসার গল্প প্রেমের গল্প লাভ স্টোরি রোমান্টিক ভালবাসার গল্প বাংলা Premer Golpo Bangla বাংলা মিষ্টি প্রেমের গল্প Moner Rong.


ইসস, কি যে গরম! তার উপর আবার এই শেরওয়ানি পড়ে আছি । এগুলো খুলতে হবে আগে । এই বলে নোমান তানিশার সামনেই শেরওয়ানি টা খুলে ফেললো । তারপর একটা তোয়ালে,টি শার্ট আর টাউজার নিলো হাতে।নোমানের পরনে এখন শুধু সাদা একটা পাজামা আছে।ফর্সা শরীরে সাদা পাজামা টা বেশ মানিয়েছে নোমানকে।তবে নোমান যে এতো চিকন তানিশা এই প্রথমবার খেয়াল করলো।শরীরে পোশাক থাকলে অবশ্য এতো চিকন বোঝা যায় না।বেশ তরতাজায় মনে হয়। নোমান কে এরকম অবস্থায় দেখে তানিশার বেশ হাসি পেলো।অন্যদিকে লজ্জাও লাগলো।সেজন্য তানিশা তখন অন্য মুখ হলো আর ভাবতে লাগলো এই ছেলেটার দেখি একটুও লজ্জা শরম নাই।কিভাবে নতুন বউ এর সামনে এই অবস্থায় আছে।


সবগুলো পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ

 ২৬তম পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ



এদিকে নোমান তানিশার কাছে এগিয়ে এসে বললো,তোমার গরম লাগছে না?এতো ভারী লেহেঙ্গা এখনো গায়ে জড়িয়ে আছো?খুলে ফেলো তাড়াতাড়ি। তারপর ফ্রেশ হয়ে আরামদায়ক একটা ড্রেস পড়ে নাও।


তানিশা সেই কথা শুনে তার শান্ত কন্ঠে বললো, আগে আপনি ফ্রেশ হয়ে নিন।তারপর আমি নিচ্ছি।


নোমান তখন বললো এখানে আগে পরের কি আছে?আমরা আমরাই তো?চলো একসাথে ফ্রেশ হয়ে নেই।এই বলে হেঁচকা টানে তানিশাকে বেড থেকে ওঠালো নোমান।তানিশা একদম সোজা নোমানের বুকে এসে পড়লো।


নোমান তা দেখে বললো,ওঠালাম ড্রেস চেঞ্জ করার জন্য কিন্তু তুমি তো দেখি এখনি গায়ে পড়ে আদর চাইছো?


--এই কি বলছেন এসব?আপনিই তো এভাবে টান দিলেন।আমি ইচ্ছা করে কিন্তু গায়ে পড়ি নি।এই বলে তানিশা দূরে সরে গেলো।


নোমান তখন আবার তানিশাকে তার কাছে টেনে নিয়ে বললো,আমি তো এটাই চাই,যে আমার বউ যখন তখন সময়ে অসময়ে এভাবে আমার গায়ে পড়ুক।আর আমি তার ভালোবাসার ঘ্রাণ নেওয়ার সুযোগ পাই।এই বলে নোমান তানিশার দিকে আবেদনময় লুকে তাকালো।তারপর ধীরে ধীরে তানিশার গলায় তার মুখ ডুবিয়ে দিলো।তানিশা নিজেও নোমানের স্পর্শ পেয়ে ভীষণ ভাবে তলিয়ে যাচ্ছিলো,সে তখন তার চোখ দুটি বুজিয়ে নিলো।কিন্তু নোমান তখন তানিশার গলার মালাটি খুলে দিয়ে বললো,

 এতো তাড়াতাড়ি দূর্বল হয়ে যাচ্ছেন ম্যাডাম?একটু তো ওয়েট করুন।


--আপনি এমন কেনো বলুন তো?আপনিই তো?এই বলে তানিশা নোমানের দিকে রাগান্বিত ভাবে তাকালো।নোমান তখন তানিশার ঠোঁটে হাত দিয়ে বললো,কথা বলতে গিয়ে থেমে যাও কেনো?

আমি কি?


তানিশা তখন সরে গিয়ে বললো,কিছু না।এই বলে সে নিজেই তার কানের দুল খুলতে লাগলো।কিন্তু যখন দেখলো এভাবে হচ্ছে না তখন সে আয়নার সামনে গিয়ে দুলগুলো খুলতে লাগলো।কানের দুল খোলা শেষ হলে মাথার টিকলি টাও খুলে ফেললো।তারপর চুলের খোপা টা খুলতে লাগলো।কিন্তু নোমান হঠাৎ  পিছন দিক দিয়ে আবার জড়িয়ে ধরলো তানিশাকে আর তার ঘাড়ে একটা কিস করে বললো, অযথা সময় নষ্ট করছেন ম্যাডাম।দিন আমি খুলে দেই।


তানিশা আবার যেনো নোমানের ছোঁয়াই শিওরে উঠলো।সে ভীষণ নার্ভাস ফিল করছিলো,কিন্তু নোমান এদিকে তানিশার চুলে গোজানো ক্লিপ গুলো এক এক করে খুলতে লাগলো আর ফাঁকে ফাঁকে আয়নার দিকে তাকালো তানিশার দিকে।হঠাৎ তানিশারও চোখ গেলো গ্লাসের দিকে।সে নোমানকে এভাবে তাকানো দেখে বললো,

আপনি কি আমার খোঁপা খুলে দিচ্ছেন না শুধু তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছেন?


--দুইটাই করছি।তোমার কোনো প্রবলেম?


--হ্যাঁ প্রবলেম হচ্ছে আমার?


--কি প্রবলেম?


--আমার অস্বস্তি লাগছে ভীষণ। 

নোমান তখন তানিশার খোপা খুলে চুল গুলো বুকের উপর এলিয়ে দিয়ে বললো ও তাই?তাহলে কি ভাবে স্বস্তি ফিরবে তোমার?


--আপনি দূরে দূরে থাকলে।


নোমান সেই কথা শুনে তানিশাকে জড়িয়ে ধরে বললো এটা আর সম্ভব না ম্যাডাম।এখন শুধু কাছাকাছিই পাবেন আমায়।


হঠাৎ শিরিন দরজায় দাঁড়িয়ে হালকা করে কাশি দিলো।নোমান সাথে সাথে তানিশাকে ছেড়ে দিলো।আর বললো,ভাবি তুমি?


--হ্যাঁ আমি।এই বলে শিরিন এক গ্লাস দুধ নিয়ে রুমের ভিতর প্রবেশ করলো।আর নোমানের বেডের পাশে রাখা টেবিলটায় রেখে দিলো।


তানিশা একদম লজ্জায় লাল হয়ে গেলো।সে আর শিরিনের দিকে তাকাতে পারলো না।সে তখন মেঝেতে পড়ে থাকা ওড়না টা তুলে নিয়ে একটু দূরে সরে গেলো।

নোমান নিজেও ভীষণ লজ্জা পাইছে।বাট এমন ভাব নিয়ে থাকলো যে কিছুই হয় নি তার।

সে তখন বললো, 

ভাবি তুমি আবার কষ্ট করে এতো রাতে দুধ আনতে গেলে কেনো?


শিরিন তখন বললো,হাজার হোক তুমি আমার দেবর তো!ভাবি হিসেবে তোমার প্রতি একটা দায়িত্ব তো আমার আছেই।তাছাড়া দেবর যদি দূর্বল হয় বদনাম তো আমাদেরই হবে তাই না?


নোমান তার ভাবির কথা শুনে হা করে তাকিয়ে রইলো। ভাবি কি সব বলছে?তার গায়ে যথেষ্ট শক্তি আছে।সে আবার দূর্বল হলো কবে থেকে?


--ওভাবে হা করে কি দেখছো?তাড়াতাড়ি গরম গরম দুধ টা খেয়ে নিও।তা না হলে কিন্তু ঠান্ডা হয়ে যাবে।এই বলে শিরিন চলে গেলো।


হঠাৎ শিরিন আবার দরজার কাছে এসে দাঁড়ালো।  আর নোমানের উদ্দেশ্যে বললো,আগে সিঙ্গেল ছিলে,সারাক্ষণ দরজা খুলে রাখাতে কোনো প্রবলেম ছিলো না।কিন্তু এখন ঘরে বউ আছে।আমার মনে হয় দরজা টা সবসময় লাগিয়ে রাখলেই বেশি ভালো হয়।এই বলে শিরিন নিজেই জোরে করে লাগিয়ে দিলো দরজাটা।

মনে হলো সে দরজা লাগালো না,তানিশা আর নোমানের উপর করা রাগ দরজায় ঝাড়লো।এই রকম শব্দ হলো।


শিরিন চলে যাওয়ার পর পর তানিশা নোমানের কাছে এসে বললো, জানি না আপনার জন্য আর কতবার আমাকে এমন লজ্জার মধ্যে পড়তে হবে?নেক্সট টাইম একটু ভেবে চিনতে পাগলামি করবেন।এই বলে সে তার লাগেজ থেকে ড্রেস বের করে ওয়াশরুমের দিকে চলে গেলো।।


এদিকে নোমান মনে মনে ভাবলো সে কিসের পাগলামি করলো?জাস্ট তার জুয়েলারি গুলো খুলছে আর মাথার খোপা খুলতে হেল্প করছে।পাগলামি তো এখনো শুরুই করে নি।এই বলে নোমান গ্লাসের দুধ টুকু এক ঢোকেই শেষ করে ফেললো।


তানিশা তাড়াতাড়ি করতে যেয়ে তোয়ালে নিয়ে যাওয়ার কথাই ভুলে গেলো। সে এখন শাওয়ার শেষ করে কিভাবে তার শরীর মুছবে সেদিকে তার বিন্দুমাত্র খেয়াল নেই।তানিশা এখন তার শাওয়ার নিয়ে ব্যস্ত।এতোক্ষণে একটু স্বস্তি মিললো তার।সেই থেকে মোটা লেহেঙ্গা টা গায়ে জড়িয়ে আছে।আহাঃ কি শান্তি এখন।

কিন্তু তানিশা যখন শাওয়ার শেষ করে শরীর মুছতে যাবে সে তোয়ালে খুঁজে পেলো না।এখন সে শরীর মুছবে কিভাবে?সে জন্য তানিশা সাথে সাথে তার জিহবায় কামড় দিয়ে বললো,এতো বড় মিসটেক সে করলো কিভাবে? 

তানিশা কোন উপাই না দেখে দরজা একটু ফাঁক করে তার গলাটা বের করে নোমানকে বললো,এই যে শুনছেন?


নোমান বিছানায় শুয়ে মোবাইল দেখছে।সে তানিশাকে ডাকা দেখে ভীষণ অবাক হলো।আর মনে মনে ভাবতে লাগলো এমন রোমান্টিক বউ ই তো তার চাই।কি সুন্দর ভাবে তাকে ডাকছে।আহঃ কি সুন্দর একটা রোমাঞ্চকর পরিবেশ তৈরি হবে এখন।সে আর আমি দুইজন দুইজনার অতি নিকটে। উপরে বৃষ্টির ফোঁটার মতো টিপটিপ করে ঝরনার পানি পড়বে।তারপর একসাথে দুইজন হারিয়ে যাবো প্রেমের অতল সাগরে। না আর ভাবতে পারছি না।এই ভেবে নোমান মোবাইল টা রেখে দৌঁড়ে গেলো ওয়াশরুমের সামনে।


কিন্তু তানিশা নোমানকে কাছে আসা দেখে চিৎকার করে বললো,এতো কাছে আসছেন কেনো?ওখানেই দাঁড়িয়ে থাকুন।


নোমান তখন দুষ্টু হাসি হেসে বললো,এখানে দাঁড়িয়ে থাকলে রোমাঞ্চ কিভাবে হবে বেবি?


তানিশা সেই কথা শুনে হাসতে হাসতে বললো,রোমান্স?  আপনি সবসময় এতো নেগেটিভ চিন্তা করেন কেনো?আমি তো তোয়ালে নিতে ভুলে গেছি।সেজন্য  ডাকছিলাম।


নোমান একদম অবাক হয়ে গেলো।সে এরকম টা কখনোই আশা করে নি।তানিশা তাকে তোয়ালে নেওয়ার জন্য ডাকছিলো।না এটা হতে পারে না।আনরোমান্টিক বউ কোথাকার!এই বলে নোমান সেখান থেকে চলে গেলো আর আবার বিছানায় গিয়ে শুয়ে পড়লো। 


তানিশা যখন দেখলো এই ছেলেকে দিয়ে তার কিছুতেই এ কাজ হবে না তখন সে ভিজে শরীরেই ড্রেস পড়ে নিলো।আর খুলে রাখা লেহেঙ্গাটা হাতে নিয়ে ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে এলো।

আর নোমানের কাছে এসে বললো ছিঃ আপনার থেকে এরকম টা আশা করি নি কখনো।এতোক্ষণ ভেজা শরীরে থেকে আমার বার বার হাঁচি পড়ছে। এই বলে সে সাথে সাথে হাঁচি দিতে লাগলো।


নোমান তখন সাথে সাথে তানিশার কাছে চলে গেলো আর তার তোয়ালে টা দিয়ে নিজেই তানিশার মুখ আর শরীর মুছতে লাগলো।তানিশা তোয়ালে টা নিতে ধরলে নোমান তার হাত টা খপ করে ধরে ফেললো।আর এবার তানিশার চুলগুলো মুছতে লাগলো।কারণ ভেজা চুল দিয়ে তানিশার টপটপ করে পানি পড়ছে।একদম কাক ভেজার মতো লাগছে তাকে।তানিশা আবার একটা হাঁচি দিলো।নোমান তখন তার হেয়ার ড্রায়ার টা এনে তানিশার চুল শুকাতে সাহায্য করলো।


তানিশা তা দেখে হেয়ার ড্রায়ার টা নিজের হাতে নিলো আর বললো,এখন এতো দয়া দেখাতে হবে না।যখন দরকার ছিলো তখন তো সাহায্য করার বদলে মুখ ভেংচিয়ে চলে গেলেন।


--সরি।বুঝতে পারি নি এটুকুতেই তোমার ঠান্ডা লেগে যাবে।


তানিশা তখন বললো,যান এখন ওয়াশরুমে।আর তাড়াতাড়ি  ফ্রেশ হয়ে নিন।আমি নিজেই শুকিয়ে নিচ্ছি চুল।রাত কিন্তু অনেক হয়েছে।ঘুমাতে হবে এখন।আমি কিন্তু বেশি রাত পর্যন্ত জেগে থাকি না।


নোমান সেই কথা শুনে তানিশার কানে কানে ফিসফিস করে বললো,এখন রাত জাগার অভ্যাস করতে হবে। আর আজ ঘুমাতে দিলে তো ঘুমাবে তুমি।আজ কোনো ঘুম চলবে না। রেডি হয়ে থাকো।আসতেছি।এই বলে নোমান নিজেও ওয়াশরুমে চলে গেলো।


তানিশা নোমানের কথা শুনে একদম হা করে তাকিয়ে রইলো কিছুক্ষন।সে ভাবতেই পারছে না এতো দুষ্টু দুষ্টু কথাবার্তা কিভাবে বলে নোমান?এতো ফাজিল একটা ছেলে সে! ভাবতেই তানিশার হাসি চলে এলো মুখে।কত ভদ্র ছিলো ছেলেটা!কিন্তু একদিনেই যেনো তানিশার চোখ খুলে গেলো।নোমান যে অতিরিক্ত মাত্রার রোমান্টিক ছেলে তার আর বুঝতে দেরি রইলো না।


এবার তানিশা তার চুলগুলো ভালো করে শুকিয়ে নিলো।তারপর সুতি ব্লাক কালারের একটা প্রিন্টের থ্রী পিচ পড়ে নিলো।থ্রী পিচ টির ভিতরে পিংক কালারের বড় বড় ফুল আঁকানো আছে।তানিশা এবার আয়নার সামনে চলে গেলো।তারপর হালকা করে একটু সাজগোছ করলো।তার ডেইলি ব্যবহার করা ক্রিম টা মুখে লাগিয়ে নিয়ে তারপর একটু পাউডার ও দিলো।এবার চোখের কোটায় একটু কাজল দিয়ে পিংক কালারের লিপিস্টিক টা হালকা করে দিয়ে নিলো ঠোঁটে।তারপর সে আয়নার দিকে তাকিয়ে একা একাই হাসতে লাগলো।আজ কেনো জানি মনে হচ্ছে তার মতো সুখী আর কেউ নয়।মনে হচ্ছে সে স্বর্গে বসবাস করছে।

এরপর তানিশা বিছানায় গিয়ে বসলো।কিছুক্ষন ফোনটা হাতে নিয়ে ফেসবুকের নিউজ ফিড স্ক্রল করতে লাগলো।

হঠাৎ তানিশার মনে হলো বাবা মার সাথে একটু কথা বলা যাক।সেজন্য সে তার বাবাকে ফোন দিলো।আর কথা বলতে লাগলো।তানিশা কথা বলতে বলতে বেলকুনির দিকে চলে গেলো।আর দূরের বিল্ডিং গুলো দেখতে লাগলো।


চারিদিকে অন্ধকার হলেও কিছু কিছু বিল্ডিং এর বেলকুনিতে আলো জ্বলছিলো।যা দেখতে ভীষণ ভালো লাগছিলো তার।আর মাঝে মাঝে দমকা হাওয়ার ঝাটকা যখন তার শরীর স্পর্শ করছিলো সে এক অজানা সুখে ভাসতে লাগলো।


হঠাৎ বেলকুনিতে নোমানও চলে আসলো।সে এসেই তানিশাকে পিছন দিক থেকে জড়িয়ে ধরে বললো, এখানে একা একা দাঁড়িয়ে কি করছো?


তানিশা তখন তার মাকে বললো,আচ্ছা মা রাখছি।ভালো থেকো।এই বলে সে কল কেটে দিলো।আর নোমানকে ধমক দিয়ে বললো,এই আপনি দেখি আসলেই কানা?দেখতে পাচ্ছেন না কথা বলছি?


--না দেখি নি।এই বলে সে তার নাক ঘষতে লাগলো তানিশার ঘাড়ে।তানিশা সেজন্য নোমানের পাশ হলো।


হঠাৎ নোমান তানিশাকে এক ঝটকায় কোলে তুলে নিয়ে বললো,যে ভালোবাসার জন্য এতোদিন ছটফট করেছি আজ তা আদায় করে নিতে চাই।তানিশা নিজেও ভীষণ অস্থির হয়ে আছে।কারণ সেও নিজের সবটুকু ভালোবাসা আজ উড়াড় করে দিতে চায়।এতোদিন নোমানকে তার ভালোবাসার কথা না বলে যে কষ্ট দিয়েছে আজ একদিনেই তার হাজারগুন ভালোবাসা ফিরে দিতে চায় সে।নোমান তানিশাকে নিয়ে রুমে প্রবেশ করলো।


রুমে ডিম লাইট জ্বলছে।তবে বেড সুইচ টা অন করা।

হালকা লাল আলোর আভায় রুমটা অনেক বেশি আকর্ষণীয় লাগছে।।তানিশা নোমানকে বিছানায় শুয়ে দিলো।তারপর মিউজিক টা অন করলো।সুন্দর একটা হিন্দি গান বাজতে লাগলো।যা শুনে দুইজনের শরীরে আরো বেশি শিহরণ জেগে উঠলো।

||

||

Meri Jaan Meri Jaan Meri Jaan

Meri Jaan Meri Jaan Meri Jaan


Aayi Hai Jo Raat Nasheeli

Iski Har Ik Baat Nasheeli

Tu Bhi Aa Karle Nasha


Dono Ki Mulaqat Nasheeli

Nashe Ki Yeh Barsaat Nasheeli

Tu Bhi Aa Karle Nasha


Meri Jaan Meri Jaan Meri Jaan

Meri Jaan Meri Jaan Meri Jaan


 মুহুর্তের মধ্যে অন্যরকম একটা রোমাঞ্চকর পরিবেশ তৈরি হলো রুমের ভিতর।নোমান আর নিজেকে সংবরন করতে পারলো না। সেজন্য সে নিজেও শুয়ে পড়লো তানিশার বুকের উপর।তারপর চোখের চশমা টা খুলে রেখে তানিশার হাতের আঙুলের ফাঁকে ফাঁকে নিজের হাতের আংগুল ঘোরাতে লাগলো।কেউ কোনো কথা বলছে না,শুধু দুইজনের তপ্ত নিঃশ্বাসের শব্দ শোনা যাচ্ছে আর ভালোবাসার ক্ষুধায় জর্জরিত দুইজোড়া চোখ পলকহীন ভাবে দুইজনার দিকে তাকিয়ে আছে।


নোমান এবার তানিশার গলায় তার মুখ ডুবিয়ে দিয়ে ফিসফিস করে বললো, নার্ভাস লাগছে?


তানিশা নোমানের এমন আবেদনঘন কন্ঠ শুনে আরো বেশি দূর্বল হয়ে গেলো।সে তখন তার শান্ত কন্ঠে উত্তর দিলো হুম।


নোমান সেই কথা শুনে তানিশার ঠোঁট দুটি ছুঁয়ে নেশাগ্রস্ত চোখে তাকিয়ে বললো,তাহলে এখন কি এবার আমার বউকে একটু গভীরতম ভালোবাসার জগতে নিয়ে যেতে পারি?


তানিশা সেই কথা শুনে ভীষণ লজ্জা পেলো। আর সাথে সাথে দুই হাত দিয়ে তার চোখ বন্ধ করে নিলো।


নোমান তা দেখে তানিশার হাত দুইটি সরিয়ে প্রথমে হাতে একটা কিস করলো।আর তানিশার কপালে ও একটা কিস করলো।তারপর যখন তানিশার ঠোঁটের কাছে নিজের ঠোঁট নিয়ে গেলো ঠিক তখনি তানিশা নোমানকে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে ধরলো। 


এদিকে নোমানের ভিতরে কামনার আগুন দাউদাউ করে জ্বলছিলো।সে আর অপেক্ষা করতে পারলো না।সে তখন তানিশাকে এলোপাতাড়ি ভাবে কিস করতে লাগলো।আর তানিশার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় স্পর্শ করতে লাগলো।অন্যদিকে তানিশা নোমানের ভালোবাসার এমন পাগল করা স্পর্শে নিজেকে সম্পূর্ণভাবে  হারিয়ে ফেললো।আর চোখ বন্ধ করে ভালোবাসার উষ্ণ স্পর্শ অনুভব করতে লাগলো।


 কিছুক্ষনের মধ্যেই দুই প্রেমিক যুগল ভালোবাসার অতল গহবরে তলিয়ে গেলো।তারা মধুর এক ভালোবাসার জগতে আছে এখন।হাজার বছর তারা এখন সেখানেই থাকতে চায়।সেখান থেকে ফিরে আসার বিন্দুমাত্র ইচ্ছে নেই তাদের।মনের মধ্যে পুষে রাখা দীর্ঘ দিনের ভালোবাসা আজ এভাবেই পূর্নতা পেলো।তারপর দুইজন কখন যে ঘুমের রাজ্যে চলে গেছে বুঝতেই পারলো না।


নিত্যদিনের মতো আজকেও রাত শেষে ভোর হলো।আর ভোরের আলোয় চারিদিক একদম আলোকিত হলো।তবে আজকের সকালটা একটু বেশিই স্পেশাল মনে হলো নোমান তানিশার কাছে।দুইজনের মুখেই সুখের হাসি।আর লাজুক লাজুক চাহনি। তানিশা একটিবারের জন্য নোমানের দিকে আজ তাকিয়ে থেকে কথা বলতে পারলো না।কারণ তার যে লজ্জা এখনো কাটে নি।এদিকে আবার সকালের নাস্তা করার টাইমও হচ্ছে।তানিশা সেজন্য নোমান কে ডেকে তুললো।কিন্তু নোমান উলটো তানিশাকে জড়িয়ে ধরে আবার শুয়ে পড়লো।


তানিশা শুধু তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছে নোমানের দিকে।আর তার মাথার চুলগুলো বোলাতে বোলাতে মনে মনে কি যেনো ভাবতে লাগলো আর ফিক ফিক করে একা একাই হাসতে লাগলো।নোমান তানিশাকে এভাবে হাসতে দেখে ধীরে ধীরে  চোখ মেলে তাকিয়ে বললো,


পাগল হয়ে গেলা নাকি?হাসছো কেনো?

তানিশা তখন বললো, হ্যাঁ পাগল পাগলই লাগছে নিজেকে।

--তাই?তাহলে আরেকটু পাগল করে দেই?এই বলে নোমান তানিশাকে আবার তার ভালোবাসার ছোঁয়ায় বন্দি করতে চাইলো।

কিন্তু দরজায় কে যেনো নক দিতে লাগলো।সেজন্য তানিশা তাড়াতাড়ি করে উঠে গেলো দরজার দিকে।আর নোমান আবার শুয়ে পড়লো।


তানিশা দরজা খুলতেই দেখে আমান দাঁড়িয়ে আছে।আমান কে এভাবে দরজার সামনে দেখে তানিশার ভীষণ লজ্জা লাগলো।তবে সে তার লজ্জাকে দূরে ঠেলে বললো,ভাইয়া আপনি?


--হ্যাঁ আমি।নোমান কই?ওকে একটু ডেকে দাও তাড়াতাড়ি। 


তানিশা সেই কথা শুনে নোমানকে ডাকতে লাগলো।আর আমানের কথা বললো। 


নোমান আমানের কথা শুনে এক লাফে বিছানা থেকে উঠলো আর আমানের কাছে চলে গেলো।


আমান নোমানকে দেখামাত্র বললো,তাড়াতাড়ি একটু ফ্রেশ হয়ে আয়।একটু বাহিরে যেতে হবে।


--বাহিরে?এতো সকালে কোথায় যাবে?


আমান তখন তার ঘড়ি দেখিয়ে বললো ১০ টা বাজে।আর তুই বলছিস সকাল?


নোমান সেই কথা শুনে বললো,ওকে ভাইয়া।আসছি আমি।তুমি জাস্ট দশ মিনিট অপেক্ষা করো।এই বলে নোমান ওয়াশরুমে ঢুকলো।


এদিকে তানিশা অনেক সকালে উঠেই আগে ফ্রেশ হয়ে নিয়েছে।সেজন্য সে মাথায় কাপড় টা ভালো করে টেনে কিচেনের দিকে চলে গেলো।


#চলবে,



 ২৮তম পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url