Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo bangla golpo pdf bangla premer golpo bangla golpo chotoder bangla golpo book bangla golpo lyrics Romantic Love Story in Bengali Bengali Romantic Love Story Valobashar Golpo Valobashar Romantic Premer Golpo Bangla Bengali Romantic Story Bangla Love Story ভালোবাসার গল্প প্রেমের গল্প লাভ স্টোরি রোমান্টিক ভালবাসার গল্প বাংলা Premer Golpo Bangla বাংলা মিষ্টি প্রেমের গল্প Moner Rong.

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo
Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo

Doctor Madam - ডাক্তার ম্যাডাম । পর্বঃ ৩২ Bangla Romantic Golpo bangla golpo pdf bangla premer golpo bangla golpo chotoder bangla golpo book bangla golpo lyrics Romantic Love Story in Bengali Bengali Romantic Love Story Valobashar Golpo Valobashar Romantic Premer Golpo Bangla Bengali Romantic Story Bangla Love Story ভালোবাসার গল্প প্রেমের গল্প লাভ স্টোরি রোমান্টিক ভালবাসার গল্প বাংলা Premer Golpo Bangla বাংলা মিষ্টি প্রেমের গল্প Moner Rong.


গাড়ি চলেছে কক্সবাজারের  উদ্দেশ্যে। সারি সারি সবুজ ঝাউবীথি,পাহাড়,ঝর্ণা আর নরম বালির মাঝে দীর্ঘ অপরুপ সৌন্দর্যের অধিকারী হলো এই কক্সবাজার। সাগরের নীল জলরাশি আর ঢেউয়ের গর্জন সাথে হিমেল হাওয়ার মনোমুগ্ধকর দৃশ্য দেখতেই সবাই দুইদিনের ট্যুরে কক্সবাজার এলো।


সবগুলো পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ

 ৩১তম পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ



তানিশারা রাতের দিকে পৌঁছে গেলো কক্সবাজারে যাতে করে সকালবেলা সমুদ্রের নির্মল বাতাস মিস না করে।প্রথমেই তারা সীগাল হোটেলে চলে গেলো।কক্সবাজারের সুগন্ধা পয়েন্টে অবস্থিত পাঁচ তারকা মানের এই হোটেল টিতে রয়েছে অত্যাধুনিক ও বিলাসী আবাসন।বিভিন্ন পরিসেবার পাশাপাশি রয়েছে সুইমিংপুল, ফিটনেস সেন্টার, বার, স্টুডেন্ট বা স্পা সেবা।এছাড়া রয়েছে কিডস প্লে জোন বিজনেস সেবা সহ অত্যাধুনিক নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধির ব্যবস্থা।


হোটেলে পৌঁছেই যে যার রুমে চলে গেলো।রুম বুকিং করা হয়েছে মাত্র তিনটি।প্রতিটি রুমে আছে ডাবল বেড।কারন মেয়েরা থাকবে এক রুমে আর ছেলেরা থাকবে অন্যরুমে।শুধুমাত্র তন্নি আর ইকবাল এক রুমে থাকার সুযোগ পেলো।কারণ তন্নি একা একা তার ছোট বাচ্চাটা সামলাতে পারবে না।তাছাড়া তাদের বড় মেয়ে ঈশাও ছিলো তাদের সাথে।

এই আইডিয়া টা প্রধানত তানিশার ছিলো।কারন কাপলরা এক রুমে থাকলে সিংগেল দুইজনের মন খারাপ হতে পারে।যেহেতু তারা সবাই আনন্দ করার জন্য গিয়েছে সেজন্য কারো যাতে মন খারাপ না হয় সেজন্যই এই ব্যবস্থা।আর এই সিংগেল দুইজন হলো শিলা আর সিফাত।শিলাকে আনা হয়েছে যাতে ওর মন টা একটু ভালো হয়,মাথা থেকে আত্নহত্যা করার বুদ্ধিটা যেনো লোপ পায় অন্যদিকে সিফাত কে আনা হয়েছে ছবি ওঠানোর জন্য।যেহেতু ও একজন প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার। 


তানিয়া,তানিশা,শিরিন আর শিলা তাদের রুমে গিয়েই ধপাস করে বেডে শুয়ে পড়লো।কারণ তাদের শরীর টা ভীষণ ক্লান্ত।এতোদূর থেকে জার্নি করে এসে তাদের এখন একটা রেস্টের দরকার।

অন্যদিকে আমান,সোহান,আর সিফাত ও মনের আনন্দে বেডে শুয়ে পড়লো।


কিন্তু বেচারা নোমান মন খারাপ করে বসে আছে।সে মনে মনে ভীষণ রাগান্বিত হয়ে আছে তানিশার উপর।নোমানের মতে তানিশার এমন করাটা মোটেও উচিত হয় নি।কারন তারা সদ্য বিবাহিত কাপল।এখনো বিয়ের সাধ পুরোপুরি ভাবে মেটে নি তাদের।তাদের তো অন্তত এক রুমে থাকা উচিত ছিলো।এটা তানিশা খুবই অন্যায় করলো নোমানের সাথে।


সোহান আর সিফাত দুই ভাই এক বেডে শুয়ে পড়লো।অন্যদিকে আমান ফ্রেশ হয়ে এসে নিজেও তার বেডে শুয়ে পড়লো আর নোমানকে শোয়ার জন্য ডাক দিলো।নোমান তখন বললো ঘুমাও তুমি।আমার ঘুম আসছে না।

আমান সেই কথা শুনে বললো,ঘুম আসছে না মানে টা কি?আমরা সবাই ক্লান্ত, ঘুমের জন্য চোখ ছোট হয়ে আসছে আর তুই বলছিস ঘুম আসছে না।


সিফাত সেই কথা শুনে বললো, আমান ভাইয়া পারমিশন দিলে একটা কথা বলবো?


;হ্যাঁ বলো।


--নোমান আর তানিশা কে এক রুমে রাখা উচিত ছিলো আপনাদের।তাদের সদ্য বিয়ে হয়েছে।এই সুযোগে হানিমুন টাও হয়ে যেতো তাদের।এইভাবে ওদের কষ্ট দেওয়ার মানেই হয় না।


নোমান সেই কথা শুনে সিফাতের কাছে চলে গেলো আর বললো, একটি বারের জন্য এই কথা টা কেউ বললো না।কেউ বুঝলো না আমার দুঃখ টা।অথচ যে সিফাত কে আমি পছন্দ করি না সেই সিফাত কি সহজে বুঝে গেলো!আয় ভাই তুই আমার বুকে আয়।এই বলে নোমান সিফাত কে জড়িয়ে ধরলো। 


অন্যদিকে আমান আর সোহান হা করে তাকিয়ে আছে।তারা এতোক্ষনে বুঝতে পারলো ব্যাপারটা।তারা সত্যি এটা ভেবে দেখে নি।আমান তখন বললো,আহারে ভাই তুই দুই দিনেই বউ পাগল হয়ে গেছিস?দুই দিন কষ্ট করে একটু থাকতেই হবে।এই বলে আমান সোহান কে

 বললো,সোহান তুমি আমার বেডে চলে আসো।ওরা দুই বলদ একসাথে থাকলেই ভালো হবে।যাতে সারারাত ওরা ওদের দুঃখের গল্প বলতে পারে।সোহান সেই কথা শুনে আমানের বেডে চলে আসলো।


সিফাত তখন বললো, আমান ভাইয়া আমাদের বলদ বললেন কেনো?


আমান তখন বললো, কখন বলদ বললাম?আমি তো বললাম নোমান আর সিফাত এক বেডে থাকবে।তোমরা বলদ হতে যাবে কেনো?


নোমান আর সিফাত এখন এক বেডে।নোমান আর সিফাত এই প্রথমবার দুইজন দুইজনার সাথে বন্ধুর মতো কথা বলার সুযোগ পাচ্ছে।এতোদিন ধরে তো তারা দুইজন দুইজনার শত্রু মনে করতো।


সিফাত শুয়ে থেকে নোমানকে বললো,তোমার কি মনে আছে ভাবির হলুদ সন্ধ্যায় তুমি আমার ক্যামেরা ভেংগে ফেলেছিলে?


নোমান সেই কথা শুনে বললো, মনে থাকবে না মানে?তুমি তানিশার ছবি ওঠাচ্ছিলে তা দেখে আমার মেজাজ বিগড়ে গিয়েছিলো।


সিফাত তখন হাসতে হাসতে বললো আমি কি জানতাম নাকি যে তুমি আর তানিশা দুইজন দুইজন কে পছন্দ করো?জানলে  কি আর তানিশার পিছনে পিছনে এভাবে ঘুরে বেড়াতাম?


নোমান তখন বললো,এখন তো তানিশা বিয়ে করেই নিয়েছে তবুও তুমি বিয়ে করছো না কেনো?


সিফাত সেই কথা শুনে বললো, মন তো একটাই।সেই মনে শুধু একজনের নামই ছিলো।এখন অবশ্য ক্যান্সেল করে দিয়েছি।দেখি আর কেউ মন টাকে দখল করতে পারে কিনা?


নোমান সেই কথা শুনে বললো তুমি যে এতো ভালো একটা ছেলে আজ তোমার সাথে কথা না বললে বুঝতেই পারতাম না।আসলে কারো বাহিরের দিক দেখে তার মনের খবর নেওয়া যায় না।


সিফাত তখন বললো,সেম কথা আমিও ভাবছি।তুমিও অনেক ভালো নোমান।তানিশা ঠিক লোককেই চয়েজ করেছে।তোমাদের একসাথে দেখলে সত্যি মন থেকে দোয়া আসে আমার।এভাবে সুখে থাকো দুইজন।


নোমান মনে মনে ভাবলো তানিশার বিয়ে হওয়াতে বেচারা সিফাত ভীষণ কষ্ট পাচ্ছে।কিন্তু সেটা প্রকাশ করছে না।সেজন্য নোমান ওর জন্য দোয়া করতে লাগলো।আর বলতে লাগলো আল্লাহ ওর জন্য যাকে পাঠাইছো তার সাথে শীঘ্রই ওকে মিলিয়ে দাও।


নোমান আর সিফাত এভাবে গল্প করে কাটিয়ে দিলো।তারা ভাবতেই পারে নি এই কয়েক মিনিটের মধ্যে তারা এতো ফ্রি হয়ে যাবে।আর তাদের পুরাতন সব বিষাদ ভুলে দুইজন বেশ ভালো বন্ধু হয়ে যাবে।


অন্যদিকে তানিশা  আর শিরিন এক বেডে শুয়ে আছে।তবে শিরিন অন্য পাশ হয়ে আছে।তানিশা আর শিরিন কে এক বেডে রাখার আইডিয়া টা কিন্তু শিলার।কারণ শিলা ভালো করেই জানে শিরিন মোটেও তানিশাকে পছন্দ করে না।এক, তানিশা একসময় আমানের ক্রাশ ছিলো।দুই,নোমান শিলাকে বাদ দিয়ে তানিশাকে বিয়ে করেছে।কিন্তু এভাবে চললে তো হবে না।কারণ তারা দুইজন যেহেতু জা আর এক বাড়িতেই থাকে সেজন্য সবার আগে তাদের মধ্যে মিল থাকা প্রয়োজন।তা না হলে ওদের সংসার টা সুখের হবে না।


শিরিন কে চুপ থাকা দেখে তানিশা বললো,ভাবি কি ঘুমিয়ে পড়েছেন?

শিরিন কোনো উত্তর দিলো না।

তানিশা তখন বললো, আমি জানি আপনি ঘুমান নি।আমার উপর থেকে এখনো আপনার রাগ কমে নি।কিন্তু ভাবি,রাগ করে থেকে কোনো লাভ নাই।সেই আমার সাথেই একই রান্না ঘরে রান্না করতে হবে আর সেই এক বাড়িতেই থাকতে হবে।


শিরিন সেই কথা শুনে বললো, আমি কোন দুঃখে তোমার সাথে রান্না করতে যাবো?


তানিশা তখন বললো, আচ্ছা,রান্না না করলেন এক বাড়িতে থাকবেন তো?প্রতিদিন তো আমাদের দেখা হবেই।তাহলে কিসের এতো রাগ?


শিরিন আর কোনো উত্তর দিলো না।


তানিশা হঠাৎ করেই বললো,ভাবি আপনি নিজেও তো এমবিবিএস পাশ করেছেন তাহলে এভাবে বাড়িতে কেনো বসে আছেন?যেকোনো  একটা হাসপাতালে জয়েন করলেও তো পারেন।


শিরিন সেই কথা শুনে বললো, আমান চাকরি করতে দেয় না।


তানিশা তখন বললো, আপনি যদি জোর করেন তাহলে উনি আর তখন কিছুই বলবে না।


শিরিন তখন বললো তবুও যদি একটু জয়েন করার ইচ্ছা ছিলো কিন্তু তুমি বলাতে এখন সে ইচ্ছাটাও মরে গেলো।দুই দিন পর ঠিক বলবা তোমার কথা শুনে আমি চাকরি করছি।


তানিশা তখন শিরিন কে জড়িয়ে ধরে বললো কেনো ভাবি?এতো রাগ কেনো আমার উপর?শিলা তো কত সহজে আমাকে মেনে নিয়েছে তাহলে আপনি কেনো মেনে নিতে পারছেন না?


শিরিন তখন বললো শিলার মতো এতো বড় মন আমার নয়।যে সহজেই কাউকে আপন করে নেবো।এই বলে শিরিন তানিশার হাত সরিয়ে দিলো।


তানিশা তখন বললো ওকে,যেদিন আপনার মন বড় হবে সেদিন আপন করে নিয়েন আমাকে।গুড নাইট।এই বলে তানিশা চোখ বন্ধ করে থাকলো।


শিরিন তানিশার কথা শুনে মনে মনে ভাবলো মেয়েটাকে যেমন ভেবেছিলাম তেমন তো নয়।এতো বড় একজন ডাক্তার হয়েও আমাকে কিভাবে সম্মান দিচ্ছে।নিজের থেকে যেচে যেচে কথা বলছে।মেয়েটা মনে হয় আসলেই ভালো।না,এভাবে অভিমান করে থেকে কোনো লাভ নাই।আরেকবার যদি তানিশা কথা বলে তাহলে আমিও বলবো।


কিন্তু তানিশা আর কিছু জিজ্ঞেস করলো না।


শিরিন তখন বললো, তানিশা তুমি কি ঘুমিয়ে গেছো?


তানিশা সেই কথা শুনে শিরিনের পাশ হলো।


শিরিন তখন বললো, আমি অনেক ভেবে দেখলাম আমাদের দুইজনের মধ্যে এরকম মান অভিমান থাকা মোটেও ঠিক না।যেহেতু আমরা একই বাড়ির বউ।


তানিশা তখন বললো আমি তো কখনোই আপনার উপর অভিমান করে নেই ভাবি।আমি তো আপনাকে নিজের বড় বোনের মতোই ভাবি।


শিরিন তখন বললো, ওকে আজ থেকে সব ভুলে গেলাম। তুমি আমাকে আজ থেকে আপু বলেই ডেকো।ভাবি ডাকার কোনো প্রয়োজন নেই।


--জ্বি আপু।


শিরিন তখন বললো এখন তাহলে ঘুমাও।


তানিশা তখন বললো, আচ্ছা ঘুমান আপনি।কিন্তু আমার কেনো জানি ঘুম আসতেছে না। 


শিরিন তখন হাসতে হাসতে বললো, কি করে ঘুম আসবে?আমার দেবর তো আর কাছে নেই।


তানিশা সেই কথা শুনে ভীষণ লজ্জা পেলো।সে তখন বললো, না সেজন্য নয়।এমনিতেই ঘুম আসছে না।


শিরিন তখন তানিশার হাত ধরে বললো,নতুন বিয়ে হইছে তোমাদের।তোমাদের মনে এখন কি চলছে তা আমি ভালো করেই জানি।ইসস নোমান টা মনে হয় তোমাকে বড্ড মিস করছে। 


;মোটেও না ভাবি।উনি আমাকে একটুও মিস করছেন না।যদি করতেন তাহলে অন্তত একটা কল দিয়ে খবর নিতেন।


--ও কল দেয় নি তো কি হইছে তুমি দাও।


;না দিবো না।আজ আমি আপনার সাথে সারারাত গল্প করতে চাই।যদি আপনি রাজি থাকেন।


--কি গল্প করবা?


;সব ধরনের গল্প।

তানিশা সেই কথা শুনে শিরিনের সাথে গল্প করতে লাগলো।এইভাবে তানিশা আর শিরিনের মধ্যকার বন্ডিং টাও ভালো হয়ে গেলো।


হঠাৎ তানিশাদের রুমের দরজায় কে যেনো ঠকঠক করতে লাগলো।শিলা তা শোনামাত্র দরজা খুলে দিতে গেলো।কিন্তু তানিশা বললো, শিলা তুমি শুয়ে পড়ো।আমি দেখছি।এই বলে তানিশা নিজেই দরজা খুলে দিলো।


তানিশা দরজা খুলতেই দেখে নোমান এসেছে।নোমান কোনো কথা না বলে চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকলো।তানিশা তা দেখে বললো,কি হলো?এভাবে চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছেন কেনো?


নোমান সেই কথা শুনে বললো, এইটা তুমি ঠিক করো নি তানিশা।তোমার উপর দায়িত্ব দিয়ে আমি মারাত্মক একটা ভুল করেছি।আমি ভাবতেই পারি নি তুমি শুধুমাত্র তিন টা রুম বুকিং করেছো?


তানিশা নোমানের কথা শুনে বললো, এতো রাতে আপনি সেই বিচার করতে এসেছেন?যান শুয়ে পড়ুন এখন।গুড নাইট।


নোমান তবুও গেলো না।সে হঠাৎ তানিশার হাত ধরে টেনে রুমের বাহিরে আনলো আর বললো আই মিস ইউ তানিশা।একা একা আমার কিছুতেই ঘুম আসছে না।প্লিজ এরকম করো না।


তানিশা তখন বললো তো আমি কি করবো এখন?সবাই কে রেখে কি এখন আপনার সাথে থাকবো?


নোমান সেই কথা শুনে তানিশাকে ছেড়ে দিয়ে বললো,তুমি আসলেই একটা নির্দয়া মেয়ে।আমার ফিলিংস বোঝার ট্রাই ই করলা না!

সারাজীবন এই রাত টার কথা মনে থাকবে আমার।কখনোই ভুলবো না এই রাত টা আমি।এই বলে নোমান চলে গেলো।


নোমান চলে গেলে তানিশা আবার তার বেডে চলে আসলো।।


শিরিন তখন বললো, নোমান এসেছিলো?


;হ্যাঁ।এই বলে তানিশা শুয়ে পড়লো।


শিরিন তখন বললো বললাম না ও ভীষণ মিস করছে তোমাকে।


;হুম।ও সত্যি ভীষণ মিস করছে আমাকে।


তানিশা তখন  নোমানকে একটা মেসেজ দিলো।


;সরি ডিয়ার।আই মিস ইউ টু।


কিন্তু নোমান রাগ করে সিন করলো না মেসেজ।


তানিশা বুঝতে পারলো নোমান ভীষণ রাগ করেছে তার উপর।


||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||


শারদের সকালে আসে ভাদ্রের ফোটাফোটা বৃষ্টি। ভিজিয়ে দেয় তপ্ত বালুচর।তাতেই যেনো প্রশান্তি খুঁজে পায় সাগর দেখতে আসা পর্যটকরা।আজকের সকালটাও ঠিক এমনি ছিলো কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের।সকাল বেলা এরকম মনোরম দৃশ্য দেখলে কার না ভালো লাগে?নৈসর্গিক সৌন্দর্যে ভরা পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত বলে কথা।সাগরের নীল জলরাশি আর ঢেউয়ের গর্জন সাথে হিমেল হাওয়ায় মনোমুগ্ধকর এক পরিবেশ।সৃষ্টিকর্তা যেনো রুপসী বাংলার সব রুপ ঢেলে দিয়েছে এই বালুর আঁচলে।


তানিশারা আজ অনেক সকালে উঠেছে সবাই।যাতে সকালবেলার সমুদ্র সৈকত মন ভরে উপভোগ করতে পারে।আর এদিকে সিফাত একের পর এক ছবি ওঠাচ্ছে।রাতে কাপল রা আলাদা থাকলেও আজ ঠিকই যে যার সঙ্গীর সাথে হাত ধরে ধরে সমুদ্রের কিনারা ঘেষে হাঁটতে লাগলো।কিন্তু নোমান মুখ ভার করে আছে।সে তানিশার দিকে একটিবারের জন্যও তাকাচ্ছে না।তানিশা তবুও জোর করেই নোমানের হাত ধরে হাঁটতে লাগলো।


নোমান তখন বললো,আজ হঠাৎ সকাল সকাল এতো ভালোবাসা কই থেকে আসলো?


তানিশা সেই কথা শুনে বললো,আমার ভালোবাসা সবসময়ই এক রকম থাকে। আপনি বুঝতে ভুল করছেন আমাকে।


নোমান তখন বললো ছাড়ো আমার হাত।


তানিশা সেই কথা শুনে নোমান কে জড়িয়ে ধরে বললো সরি।আমি বুঝতে পারি নি আপনি আমাকে এতো বেশি মিস করবেন?


নোমান তখন তার অভিমান মাখা কন্ঠ নিয়ে বললো, ও তুমি বুঝবেও না কখনো।


তানিশা তখন বললো বললাম তো সরি।এখন রাগ অভিমান সব দূরে ঠেলে দিয়ে চলুন সকাল বেলার এই মনোরম দৃশ্য উপভোগ করি।এই বলে তানিশা আবার নোমানের সাথে হাঁটতে লাগলো।তবে এবার হাতে হাত রেখে নয়।দুইজন দুইজনকে জড়িয়ে ধরে হাঁটতে লাগলো।


এদিকে শিলা একা একা হাঁটছে।হঠাৎ শিলা খেয়াল করলো সিফাত কে।সিফাত সেই থেকে শুধু ছবিই তুলছে।সেজন্য শিলা এগিয়ে গেলো সিফাতের কাছে।আর বললো, এই আপনার কি আর কোনো কাজ নেই?সেই থেকে শুধু ছবিই ওঠাচ্ছেন।

সিফাত তখন শিলার আরো কয়েকটা ছবি তুলে বললো, ম্যাডাম! আমাকে এজন্যই তো আনা হয়েছে।


শিলা সেই কথা শুনে হাসতে হাসতে বললো,তাই বলে সারাক্ষণ শুধু ছবিই ওঠাবেন?দেখি কেমন ছবি ওঠাছেন?

সিফাত তখন শিলাকে দেখাতে লাগলো ছবিগুলো।শিলা দেখলো সিফাত শুধু তানিশা আর নোমানের ছবিই বেশি উঠায়ছে।


শিলা কিছুক্ষন নোমান আর তানিশার দিকে তাকিয়ে থাকলো।সিফাত তা দেখে বললো, এই যে ম্যাডাম?ওভাবে কি দেখছেন?অন্যের হাজব্যান্ড কে দেখে কি লাভ?

শিলা তখন বললো, আপনি বুঝি অন্য জনের বউ কে দেখেন না?

সিফাত সেই কথা শুনে বললো, দেখি না বললে ভুল হবে।তবে আমি শুধু একজনের বউকেই দেখি।


শিলা বেশ আশ্চর্য হলো সেই কথা শুনে।সে তখন বললো কার বউ সেটা?


সিফাত হেসে বললো ম্যাডাম আপনি মনে হয় তাহলে জানেন না কিছু।


;কি জানি না।


সিফাত তখন বললো, চলুন হাঁটতে হাঁটতে গল্প করি।


;চলুন।এই বলে শিলা আর সিফাত হাঁটতে লাগলো।

সিফাত তখন বললো আমি কিন্তু তানিশাকে খুব বেশি পছন্দ করতাম।সেই থেকে ওনার জন্য ওয়েট করে ছিলাম।কিন্তু উনি নোমানকে ভালোবাসে বলে আমাকে রিজেক্ট করে দিয়েছেন।


শিলা বেশ আশ্চর্য হলো সেই কথা শুনে।আর বললো সত্যি বলছেন?


;হ্যাঁ,একদম সত্যি।


শিলা তখন বললো, তাহলে আপনার কষ্ট হচ্ছে না ওদের কে একসাথে দেখে?


;না,বরং ভালো লাগছে যে ওরা ভালো আছে।


শিলা তখন বললো আপনার আর আমার কষ্ট কিন্তু সেম।আর চিন্তা ধারাও এক রকম।আমিও এটাই মনে করি।আর ওদের জন্য দোয়াও করি।যে ওরা দুইজন যেনো সারাজীবন ভালো থাকে।


সিফাত তখন বললো তাহলে আত্নহত্যা করতে চেয়েছিলে কেনো?


শিলা তখন হেসে উঠে বললো, জানি না।কেমন যেনো অসহ্য লাগছিলো জীবন টা।


সিফাত তখন বললো মাত্র এই কয়দিনেই এতো ভালোবেসেছেন নোমান কে,আর তার বিরহে আবার আত্নহত্যাও করতে ধরেছেন?


শিলা তখন বললো, আপনি কত দিন ধরে ভালোবাসেন তানিশাকে?


সিফাত তখন হাসতে হাসতে বললো বললে বিশ্বাস করবে?


;বলুন না?


--দশ বছর।


শিলা সিফাতের মুখে এই কথা শুনে অনেক বেশি আশ্চর্য হলো।সে ভাবতেই পারছে না এতোবছর ধরে এক তরফা ভাবে একজন কে এভাবে ভালোবাসা যায়?শিলা সিফাতের কষ্ট টা অনুধাবন করার ট্রাই করতে লাগলো।সে ভাবতে লাগলো তাহলে সিফাতের কত টা কষ্ট হয়েছে তানিশার বিয়ের কথা শুনে?তবুও তো সিফাত আত্নহত্যা করে নি।বরং হাসিমুখে তাদের শুভকামনা করছে।একের পর এক তাদের কাপল ফটো তুলছে।এমনও কি হয়?


#চলবে,




 ৩৩তম পর্ব পড়তে ক্লিক করুনঃ

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url