Prince Of Vampire - ভুতের গল্প । পর্বঃ ০৫

 

Prince Of Vampire - ভুতের গল্প । পর্বঃ ০৫

Prince Of Vampire💕

লেখিকাঃ Sumaiya Moni

পর্বঃ ০৫


প্রিয়া বাসায় এসে ওর সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনার কথা ভাবতে লাগলো । অভয়ের কথা ভাবতেই ওর মনের মধ্যে একটা শীতল বাতাস বয়ে যায়। মুচকি হেসে ওর প্রিয় টেডি ভিয়ারটাকে জড়িয়ে ধরে । 

পরের দিন.....

সবাই যে যার কাজে ব্যস্ত। কেউ ফুল লাখাচ্ছে। আবার কেউ মালা গাথছে। ছেলেরা লাইটিং এর কাজ করছে।প্রিয়া কাজ করছে আর বারে বারে এদিক সেদিক তাকাচ্ছে। ওর চোখ শুধু অভয় কে খুঁজচ্ছে। টিনা এটা বুঝতে পেরেছে । টিনা প্রিয়া কে খোচা দিয়ে বললো।

টিনা: কী কাকে খুঁজছিস হ্যাঁ?

প্রিয়া: কোথায় কাউ কে না তো?

টিনা: আমার চোখ ফাকি দিতে পারবি না। আমি ঠিক দেখেছি তুই কাউ কে খুঁজছিস। বল বল কাকে খুঁজছিস?

প্রিয়া: কাউ কে না।

টিনা: মিথ্যে কথা।

প্রিয়া: সত্যি কথা।

টিনা: মিথ্যা ।

প্রিয়া:সত্যি ।

রিমি: কিরে তোরা কী মিথ্যা,সত্যি খেলা শুরু করেছিস নাকি?

টিনা: আরে না,প্রিয়া কাকে যেনো খুঁজছে,সেটা বলাতেই আমাকে বলে আমি নাকি মিথ্যে কথা বলছি।

প্রিয়া: রিমি টিনার কথা একদমি বিশ্বাস করবি না। ও মিথ্যে কথা বলছে।

টিনা: হ্যাঁ হ্যাঁ এখন তো আমার কথা মিথ্যে হয়ে যাবে।

রিমি: তর্ক থামা তোরা। এখনও অনেক কাজ পড়ে আছে। সেগুলো কর । 

টিনা: করছি তো।

যে যার কাজে মন দিল। প্রিয়ার মন শুধু অভয়কে দেখার জন্য ছটফট করছে । কেন সেটা ওর অজানা । কাজ করছে আর কালকে অভয়ের বাঁচানোর দৃশ্যের কথা ভাবছে। 

পিছন থেকে কারো ডাক ওদের কানে ভেসে আসলো। প্রিয়া,টিনা,রিমি,রুমকি ঘাড় ঘুরিয়ে পিছনে তাকিয়ে দেখে এলিনা নামের মেয়েটি দাঁড়িয়ে আছে।

এলিনা: এক্সকিউজ মি! প্রিন্সিপাল স্যারের রুমটা কোথায় বলতে পারো কী?.......[ ঢং করে বললো ]

প্রিয়া: স্ট্রেট,লেফ্ট,রাইট যাও পেয়ে যাবে।

এলিনা: ওকে থ্যাংকস......[ বলেই চলে যায়‌ ]

রুমকি: বাবা কত ভাব...।

টিনা: যেই ভাব দেখাই মনে হয় বিশ্ব সুন্দরি ।

প্রিয়া: আহা‌ চুপ থাক তোরা। আচ্ছা আজকে‌ স্যাম কে দেখছি না কোথাও। আজ কলেজে আসে নি নাকি?

টিনা: ও তো এই ব্যাপার। আপনি তাহলে স্যাম কে খুঁজছিলের এতোক্ষন।

প্রিয়া: মোটেও না। আমি তো জাস্ট ওর কথা জিজ্ঞেস করলাম তোদের। এতো বেশি বুঝিস কেন তুই?

টিনা: ঠিকি বুঝি আমি।‌

প্রিয়া: ঠেঙ্গা বুঝো তুমি। 

রিমি: ঝগড়া থামা না রে। ফুল গাথা শেষ,এখন এই ফুল গুলো ট্রেজের উপর লাগাতে হবে। চল এগুলা নিয়ে। 

টিনা: হ্যাঁ আয় চল।

ওরা সবাই ট্রেজের সামনে এসে দাঁড়ায়।

প্রিয়া,টিনা, রিমি, রুমকি ট্রেজের উপরে তাকিয়ে আছে। এতো উঁচুতে ওরা ফুল লাগাবে কী করে সেটাই ভাবছ। 

রিমি: এটা তো অনেক উঁচু। ফুল লাগাবো কী করে?

টিনা: কেনো মই দিয়ে উঠে লাগাবো।

রুমকি: ওয়েট আমি মই নিয়ে আসছি। 

রুমকি মই আনতে যাবার সময় আচমকা রিমির সাথে ধাক্কা লেগে হাতে থাকা ফুলের জুড়ি ট্রেজের নিচে পড়ে যায়। সব ফুল মাটিতে পড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে যায়।

রিমি: শীট! এটা কী করলা?

রুমকি: স্যরি স্যরি আমি আসলে ইচ্ছে করে ধাক্কা দেইনি। 

টিনা: গাথা ফুল গুলো ছুটে গেছে কিনা দেখ গিয়ে রিমি। 

রিমি ট্রেজের নিচে গিয়ে দেখে সব ফুল ঠিক ঠাক মতো আছে ,আবার কিছু ফুল ছিড়ে গেছে।

রিমি: কিছু ঠিক আছে,আবার কিছু ছিড়ে গেছে। আমি বলি কী মই নিয়ে এসে তোদের মধ্যে কেউ উপরে উঠে ফুল লাগা আর নিচের থেকে আমি এই ফুল গুলো তোদের হাতে দেই।

টিনা: কিন্ত এটা অনেকটা উপরে। উপরে কে উঠবে? সানি,বিক্কি ওদের কাউ কেই দেখতে পাচ্ছি না। 

রুমকি: তুমি উঠো প্রিয়া । তুমি বেশ লম্বা আছো।

প্রিয়া: আমার কোন সমস্যা নেই উপরে উঠতে। 

টিনা: এটা অনেক উপরে তোর উঠার কাজ নেই প্রিয়া । ছেলেরা কেউ আসলে ওদের দিয়ে লাগাবো ফুল গুলো।

প্রিয়া: সমস্যা নাই আমি উঠি তোরা আমার হাতে একটা একটা করে ফুল দে,আমি উপরে লাগিয়ে দেই। 

টিনা: তোর ভয় করছে না এতো উপরে উঠতে?

প্রিয়া: ধেৎ! ভয় কিসের। রুমকি তুমি মই নিয়ে আসো যাও।

রুমকি: ওকে। 

রুমকি মই নিয়ে এসে ট্রেজের উপরে ঠিক করে বসিয়ে দিল ।

প্রিয়া: রুমকি তুমি মই ধরে বসো। আর টিনা তুই ফুল গুলো একটা একটা করে আমার হাতে দে ।

টিনা: ঠিক আছে বাট সাবধানে উপরে উঠিস। 

প্রিয়া: আচ্ছা।

প্রিয়া খালি পায়ে এক পা এক পা করে মই ভেয়ে উপরে উঠতে লাগলো। অনেকটা উপরে উঠে গেছে প্রিয়া । মইয়ের একে বারে শেষ দুই মাথায় দাঁড়িয়ে আছে প্রিয়া। একবার নিচের দিকে তাকাল। মনের মধ্যে হালকা ভয় অনুভব করল প্রিয়া।

প্রিয়া: টিনা ফুল দে।.......[ জোরে বললো ]

টিনা: এই নে প্রিয়া। 

প্রিয়া টিনার হাত থেকে ফুল নিয়ে দেয়ালে লাগাতে শুরু করল। আস্তে আস্তে অনেকটা ফুল লাগান হয়ে গেছে। 

রুমকি: আমার প্রচন্ড পানি পিপাশা পেয়েছে। আমি পানি  খেয়ে আসি।

টিনা: তুমি গেলে মই ধরবে কে?

রুমকি: আরে আমি যাবো পর আসবো?

প্রিয়া: ওকে তুমি যাও রুমকি,আর তাড়াতারি চলে এসো। ...........[ উপর থেকে জোরে বলে উঠল ]

রুমকি: আচ্ছা। 

রুমকি পানি খাবার জন্য হল রুম ত্যাগ করে। 

প্রিয়া: টিনা ফুল দে। 

টিনা: রুমকি আসুক তারপর লাগা। 

প্রিয়া: এতোক্ষন দাঁড়িয়ে থাকতে পারবো না। তুই ফুল দে।

টিনা: ওয়েট দিচ্ছি ।

আবার আগের মতো লাগাতে শুরু করল। 

রিমি: টিনা হেল্প....ফুল পেচিয়ে গেছে। ছাড়াতে সাহাস্য কর আমকে ।

টিনা: ওয়েট আসছি। প্রিয়া তুই চুপ চাপ দাঁড়িয়ে থাক, আমি আসছি। নড়াচড়া করবি না একদম। 

প্রিয়া: আচ্ছা যা তাড়াতারি । আমার পা ব্যাথা হয়ে গেছে কিন্ত। আর বেশিক্ষন দাঁড়িয়ে থাকতে পারবো না। 

টিনা: ওকে।

টিনা ট্রেজের থেকে নেমে রিমির সাথে ফুল ঠিক করতে লাগলো। প্রিয়ার পা বেশ ব্যাথা করছে। ওদের কে না বলেই মই থেকে নামতে লাগলো । দু পা নামার পর পরই প্রিয়ার স্কার্ট ওর বাম পায়ে পেচিয়ে যায়। প্রিয়া এবার ভয় পেয়ে যায়। যদি এখনি পড়ে যায়, এটাই ভাবছে। ডান পা সরাতে যাবে ঠিক সেই সময় ডান পায়ে এমন ভাবে ওর স্কাট পেচিয়ে যায় প্রিয়া এবার ওর ব্যালেন্স ঠিক রাখতে পারে না। জোরে একটা চিৎকার দিয়ে চিত হয়ে নিচের দিকে পড়তে লাগলো ।

প্রিয়া:আআআআআআআআআআআ.......... ।

টিনা,রিমি পিছনে তাকিয়ে "প্রিয়া" বলে জোরে চিৎকার দিয়ে উঠে। হুট করেই কিছু বুঝে উঠার আগেই কোথা থেকে অভয় নরমাল ভাবে এসেই ট্রেজের উপরে উঠে প্রিয়া কে ধরে ফেলে । প্রিয়া চোখ খিচে বন্ধ করে আছে। বুকের মধ্যে ধুকধুক শব্দ হচ্ছে । প্রিয়ার কাছে মনে হচ্ছে ও আজ পরপারে যাবে। হঠাৎ নিজেকে শূন্যে ভাসতে দেখে হুট করেই চোখ মেলে তাকায়,তাকিয়ে সামনে অভয় কে দেখতে পায় । প্রিয়ার বুঝতে বাকি থাকে না অভয় ওকে পড়ার আগেই ধরে ফেলেছে। এবাবের মতো প্রিয়া বেঁচে গেছে। প্রিয়া অভয়ের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে । অভয়ের চোখে রাগ স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে। অভয় ওর দিকে কিছুটা রাগ নিয়ে তাকিয়ে আছে। প্রিয়ার সেদিকে খেলার নেই। প্রিয়া অভয়ের ওই মাথা ভরা চোখের দিকে তাকিয়ে হারিয়ে গেছে। এক দৃষ্টিতে অভয়ের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে । 

রিমি প্রিয়ার কাছে যেতে নিলে টিনা আস্তে করে থামিয়ে দেয়। টিনা ওর ফোন বের করে এতো সুন্দর মুহূর্তের কয়েকটা ছবি ওদের অজানতেই ক্যামেরা বন্ধি করে ফেলে। এতো সুন্দর রোমান্টিক মুহূর্তটা টিনা মিস করতে চায়নি। 

কতক্ষন এভাবে তাকিয়ে ছিল ওরা ঠিক জানে না। এদের ঘোর কাটে টিনার হালকা কাশিতে।

টিনা: উহু..উহু...।

অভয় প্রিয়ার উপর থেকে চোখ সরিয়ে ফেলে। প্রিয়া কিছুটা লজ্জা পেয়ে যায় । অভয় প্রিয়া কে নিচে নামিয়ে দিয়ে ট্রেজের থেকে নেমে হনহন করে হল রুম থেকে বেরিয়ে যায়। প্রিয়া অভয়ের যাবার দিকে তাকিয়ে ভাবছে।

প্রিয়া: এবারও তুমি আমাকে বাঁচিয়ে নিলে অভয় । জানি না তোমাকে কিভাবে ধন্যবাদ দেবো......[ মনে মনে ]

টিনা প্রিয়া কে হালকা ধাক্কা দেয়। 

টিনার ধাক্কায় প্রিয়া ভাবনার জগৎ থেকে ফিরে আসে।

টিনা: কী ভাবছেন জুলিয়েট?

প্রিয়া: জুলিয়েট মানে?

রিমি: বাহ্! জুলিয়েট চিনে না।

টিনা: একটু আগেই তো রোমিও আপনাকে বাঁচালো।

প্রিয়া লজ্জা পেয়ে যায় টিনার কথা শুনে। 

প্রিয়া: ধেৎ! কী যে বলিস না। 

টিনা: ও বাবা জুলিয়েট দেখি লজ্জাও পায়। 

এর মধ্যে সানি ও বিক্কি এসে ওদের সামনে দাঁড়ায়।

সানি: কী কথা হচ্ছে?

বিক্কি: হেই অর্ধের ফুল লাগিয়েছ । বাকি ফুল লাগাও নি কেন?

রিমি: বাকি ফুল লাগাবার আগেই রোনান্টিক কাহিনি হয়ে গেছে সেটা জানেন?

বিক্কি: রোমান্টিক কাহিনি মানে?

প্রিয়া: রিমি স্টপ!

সানি: স্টপ মানে? কী হয়েছে?

রুমকি পিছন থেকে এসে বললো।

রুমকি: হেই গায়েস স্যরি ফর লেট...চল বাকি ফুল লাগাই। হেই সানি,বিক্কি তোরা এখানে?

বিক্কি: তুই কোথা থেকে এসে জুটলি। যা সর এখান থেকে। 

রুমকি: কেন আমি এখান থেকে কেন সরবো?

সানি: রিমি রোমান্টিক কাহিনিটা বল ?

প্রিয়া: রিমি,টিনা ওটা একটা এক্সিডেন্ট ছিল,রোমান্টিক কাহিনি না। 

টিনা: জানি জানি। কী হয়েছিল গায়েস যানো।

টিনা সব ওদের খুলে বললো। প্রিয়া লজ্জায় নিচের দিকে তাকিয়ে আছে । ওরা সবাই জোরে জোরে হাসতে লাগলো। ওদের সাথে স্যাম এসে জোগ দিল । স্যাম ও ওদের সাথে হাসতে লাগলো।ওদের হাসিতে প্রিয়া লজ্জায় পড়ে যায়। 


অভয় আড়ালে দাঁড়িয়ে ওদের কথা শুনছে। অভয় হল রুমের পাশ কাটিয়ে যাবার সময় হঠাৎ প্রিয়ার চিৎকার শুনতে পায়। উঁকি দিয়ে দেখে প্রিয়ার পড়ে যাবার দৃশ্য । অভয় দেরি না করেই ঝড়ের বেগে দৌড় দেয়। ট্রেজের কাছে আসার আগেই দৌড়ের গতি কমিয়ে দেয়। যাতে টিনা ও রিমি অভয়নকে সন্দেহ না করতে পারে। প্রিয়াকে অভয় ঠিকি বাঁচায় কিন্তু উপরে উঠার জন্য অভয়ের বেশ রাগ হয় প্রিয়ার উপর। তাই তখন রাগী চোখে প্রিয়ার দিকে তাকিয়ে ছিল। আড়ালে দাঁড়িয়ে এই সব ভাবছিল অভয়.....ওর পাশে যে রাহিল দাঁড়িয়ে আছে সেটা অভয় বুঝতে পারেনি।

রাহিল: আমি কিছু বলবো?

হঠাৎ রাহিলের কন্ঠ শুনে অভয় ওর পাশে তাকিয়ে দেখে দাঁত সব বের করে ওর দিকে তাকিয়ে আছে রাহিল। অভয়ের কিছুটা রাগ হয় রাহিল কে দেখে।

প্রিন্স অভয়: তুই সব সময় আমার পিছনে কেনো পড়ে থাকিস? ...........[ কিছুটা রেগে ]

রাহিল: তোর পিছনে পড়ে থাকাই আমার কাজ ব্রো।......[ মুড নিয়ে ]

প্রিন্স অভয়: তুই যা এখান থেকে...... [ রেগে ]

রাহিল: যাচ্ছি...তার আগে একটা কথা বলি.....সিনটা কিন্তু সেই হয়েছিল ব্রো। অভয়+প্রিয়া বাহ্ কী সিন মাইরি।........[ বলেই হেসে দৌড় ]

অভয় রাগে সেখানে দাঁড়িয়ে ফোস ফোস করছে।

প্রিয়া কাজ শেষ করে বাসায় চলে আসে। রাতে অভয়ের বাঁচানোর দৃশ্যর কথা ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়ে । 

নেকড়ে কিংডম....

এবিক: জ্যাক মেয়েটি কে খুঁজে পেয়েছ?

জ্যাক: নো ড্যাড.... এখনও খুঁজে পায়নি।

এবিক: যতো তাড়াতারি সম্ভব মেয়েটিকে খুঁজে বের কর।

জ্যাক: ওকে ড্যাড ।

এবিক: এলিনা,স্যাম কোথায়?

জ্যাক: জঙ্গলে গিয়েছে শিকার করতে।

এবিক: আচ্ছা তুমি তোমার কাজে যাও।

জ্যাক এবিকের কক্ষ ত্যাগ করে।

পার্টির দিন......


সবাই পার্টিতে এসে পড়েছে। হালকা মিউজিকের শব্দ,চার দিল লাইটিং ও ফুল দিয়ে সাজানো। একটা জাক-জমক পরিবেশ। টিনা,রিমি,রুমকি,সানি,বিক্কি ওরা সবাই এসেছে কিন্তু প্রিয়া এখনও আসে নি। স্যাম, জ্যাক,এলিনা ওরা তিন জন এসে পড়েছে। স্যাম এসে টিনা কে জিজ্ঞেস করলো প্রিয়ার কথা। টিনা বলে দিয়েছে প্রিয়া এখনো আসে নি। অভয় ও রাহিল কালো একটা কার নিয়ে কলেজের ভিতরে প্রবেশ করল। অভয় রাহিল কে কার পার্ক করতে বলে ভিতরে চলে যায়। অভয় আজ ব্লাক কোট,ব্লু শার্ট,কালো প্যান্ট পড়েছে। চোল গুলো কঁপালের উপর পড়ে আছে, হাতে ওয়াচ। চোখের সানগ্লাস খুলে ভিতরে প্রবেশ করল অভয়। অভয়কে দেখে মেয়ে ক্রাশ । ভিতরে প্রবেশ করে এটা টেবিলের চেয়ারে গিয়ে বসল। ওর চোখ প্রিয়া কে খুঁজছে। কিন্তু প্রিয়ার দেখা মিলছে না অভয়ের। হঠাৎ করে এলিনার চোখ যায় অভয়ের উপর। এলিনা অভয়কে দেখে‌ ওর প্রেমে পড়ে যায়। দূর থেকে দাঁড়িয়ে অভয়কে দেখতে থাকে। 

কিছুক্ষন পর প্রিয়া হল রুমে প্রবেশ করল। ব্লু রঙের সট ড্রেস পড়া, চুল গুলো খোলা,চোখে ও ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক। হাতে পার্স। দেখতে সন্দর দেখাচ্ছে প্রিয়া কে। প্রিয়া গিয়ে টিনাদের সাথে আড্ডায় জয়েন্ট করল । কথায় মশগুল সবাই। যে যার মতো পার্টি এনজয় করতে লাগলো। অভয় বারে বারে আড়চোখে প্রিয়ার দিকে তাখাচ্ছে। প্রিয়াও আড়চোখে অভয় কে দেখতে ব্যস্ত। দু জন দুজকে আড়চোখে দেখছে। অভয়ের পাশে বসে রাহিল এটা ভালো করেই বুঝতে পেরেছে । 

অভয় হালকা ড্রিঙ্ক করছে। রাহিল অভয়ের উদ্দেশ্যে বললো।

রাহিল: ভাই চুরি করে কী প্রেম হয়?

প্রিন্স অভয়: এটা কেনো বলছিস?

রাহিল: না মানে আমি দেখছি একজন আরেজ জনের দিকে তাকাচ্ছে বাট আড়চোখে ।কেউ তো কারো সাথে ঠিক মতো কথাও বলে না। তাহলে তুই বল চুরি করে প্রেম কিভাবে হবে?

অভয় ভালো করেই বুঝতে পেরেছে রাহিল কথাটা ওকে ইংঙ্গিত দিয়ে বলেছে।

প্রিন্স অভয়: সাটআপ রাহিল। 

রাহিল: ওকে আমি সাটআপ। তুই এখানে বসে দেখতে থাক আর আমি একটু পটিয়ে আসি। 

প্রিন্স অভয়: কাকে?

রাহিল: আমার টিনু কে। 

রাহিল কথাটা বলেই বসা থেকে উঠে টিনার কাছে যেতে লাগলো। রাহিল উঠে গিয়েছে দেখে প্রিয়া ওর বন্ধুদের উদ্দেশ্যে বললো। 

প্রিয়া: আমি একটু আসছি। 

রিমি: কোথায় যাচ্ছিস প্রিয়া!

প্রিয়া: অভয়কে "থ্যাংকস " বলতে । কালকে থ্যাংকস বলতে পারিনি অভয়কে।

রিমি: আচ্ছা তাড়াতারি আসিস।

প্রিয়া :হুমমম ।

প্রিয়া চলে আসে অভয়ের কাছে । রাহিল টিনার সামনে দাঁড়িয়ে বললো।

রাহিল: টিনা can I dance with you? .......[ হাত বাড়িয়ে দিয়ে বললো ]

টিনা প্রথম রাজি না হলেও পরে রাজি হয়ে যায়। রাহিল ও দেখতে যথেষ্টা হ্যান্ডসাম। টিনাও কম সুন্দর নয়। রাহিলের হাতের উপর হাত রাখলো টিনা । ডান্স ফ্লোরে গিয়ে ওরা দু জন ডান্স করতে লাগলো ।

প্রিয়া জুস এর গ্লাস হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অভয়ের পাশে। কী বলবে ? কী দিয়ে শুরু করবে ভেবে পাচ্ছে না। অভয় ওর মতো বসে আছে। অভয় দেখছে প্রিয়া বিড়বিড় করে কী যেনো বলছে‌ আর ওর সামনে লজ্জা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

প্রিয়া: ধেৎ প্রিয়া একটি ছেলের সাথে কথা বলতে পারিস না। অভয়ের সাথে কথা বললে কী ও তোকে খেয়ে ফেলবে নাকি। জাস্ট কুল প্রিয়া...কুল...[ মনে মনে ]

অভয় প্রিয়ার মনে মনে বলা কথা শুনছে। অভয় হালকা  মুচকি হাসলো। প্রিয়া বড় একটা নিশ্বাস নিয়ে বললো।

প্রিয়া: মানে আমি একটা কথা বলতে চাই আপনাকে।.........[ মৃদ কন্ঠে বললো ]

প্রিন্স অভয়: বলো......[ মুড নিয়ে বললো ]

প্রিয়া: আপনি আমাকে দু বার বিপদের হাত থেকে বাঁচিয়েছেন তার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ । শুধু ধন্যবাদ নয় অনেক অনেক ধন্যবাদ ।

অভয়ের রাগ হল প্রিয়ার কথা শুনে। অভয় আচমকা দাঁড়িয়ে গিয়ে প্রিয়ার ডান হাত ধরে ওর মুখের সামনে প্রিয়ার চেহারা নিয়ে এসে বললো। 

প্রিন্স অভয়: তোমার ধন্যবাদ তোমার কাছে রেখে দেও,সেটা আমার দরকার নেই। তুমি কী ভেবেছ তোমাকে বার বার বাঁচানোর জন্য আরি হাজির হবো। তাহলে ভূল ভাবছ। পরের বার তুমি বিপদে পড়লে আমি তোমাকে বাঁচাতে আসবো না। আমি তোমার বডিগার্ড নয়। তাই নিজের সেফ্টি নিজে করতে শিখো। ..........[ রাগী কন্ঠে বলে প্রিয়ার হাত ছেড়ে দূরে সরে যায় ]

প্রিয়া এতোক্ষন অবাক হয়ে অভয়ের বলা কথা গুলো শুনছিল । প্রিয়া মনে মনে‌ এটা ভাবছে হঠাৎ করে রেগে যাবার কারন কী? শুধু ধন্যবাদ কথাটাই তো বললো!অভয় আগের মতো ড্রিঙ্ক করতে লাগলো। আর প্রিয়া মাথা নিচু করে জুসের গ্লাসের দিকে তাকিয়ে আছে । ওর মনটা খারাপ হয়ে গেছে । অভয়ের কাছে খারাপ লাগলেও ,ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে বসে আছে অভয়। হুট করেই অভয়ের সামনে এলিনা এসে বললো।

এলিনা: can I dance with you?.......[ মুচকি হেসে ]

অভয় ও প্রিয়া এলিনার দিকে তাকিয়ে আছে । অভয় প্রিয়ার দিকে তাকিয়ে এলিনা কে বললো।

প্রিন্স অভয়: সিওর....।

এলিনা খুশি হয়ে যায়। প্রিয়া কে দেখিয়ে অভয় এলিনার হাত ধরে সেখান থেকে ডান্স ফ্লোর এ চলে যায় ডান্স করতে। প্রিয়ার রাগ হচ্ছে কেন সেটা জানে না । ওদের দু জন কে‌ এক সাথে ডান্স করতে দেখে কেনো যে ওর রাগ হচ্ছে সেটা প্রিয়ার অজানা। এদিকে সাবইকে ডান্স করতে দেখে । স্যাম এসে প্রিয়ার হাত ধরে ডান্স ফ্লোরে নিয়ে গিয়ে প্রিয়ার কোমড়ে হাত রেখে ডান্স করতে লাগলো। অভয় আড়চোখে এটা দেখে রেগে আগুন হয়ে যাচ্ছে । প্রিয়া স্যামের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে ডান্স করছে।  দু জন ডান্স করছে আর দু জনের দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছে। কিছুক্ষন পর ডান্স পাটনার পালটে টিনা স্যামের কাছে গেল। প্রিয়া রাহিলের কাছে এলো। অভয় অন্য একটা মেয়েকে নিয়ে ডান্স করছে। রাহিল তো প্রিয়ার দিকে‌ তাকিয়ে ডান্স করছে। কিন্ত প্রিয়া বারে বারে অভয়ের দিকে তাকাচ্ছে। 

রাহিল অভয়ের দিকে তাকিয়ে দেখে অভয়ও আড়চোখে প্রিয়ার দিকে তাকাচ্ছে। রাহিলের মাথায় দুষ্ট বুদ্ধি চাপল। রাহিল মনে মনে অভয় কে রাগাবার জন্য বললো।

রাহিল: আহহ...প্রিয়ার হাত কী নরম,ওর কোমড় তো আরো নরম। কী যে ভালো লাগছে প্রিয়া কে টার্চ করতে।........[ মনে মনে ]

অভয় এটা শুনে রাগে ফায়ার বক্স। রাহিল কে কিছুই বলছে না। রাহিল ভালো করেই বুঝতে পেরেছে অভয়ের রাগ হচ্ছে । আরেকটু রাগাবার জন্য রাহিল প্রিয়ার একটু কাছে গেশে গেশে ডান্স করছে। প্রিয়া রাহিলের এমন কান্ডর দিকে ওর কোন খেয়াল নেই। ওর চোখ তো অভয়ের উপর স্থির। অভয় তো রেগে ফেটে যাচ্ছে । এবারও পাটনার চেঞ্জ হলো। প্রিয়া অন্য কারো কাছে যাবার আগেই অভয় প্রিয়ার হাত ধরে টেনে রাহিলের কাছ থেকে ওর কাছে নিয়ে আসে। প্রিয়া হঠাৎ করেই অভয়ের এমন কান্ড দেখে অবাক। রাহিল তো সেই খুশি । ঢোস এ কাজ হয়েছে এটা ভেবে। 

এখন প্রিয়া ও অভয় ডান্স করছে। অভয় প্রিয়ার কোমড়,হাত জোরে চেপে ধরে ডান্স করছে। প্রিয়া কিছুটা ব্যাথা অনুভব করছে। অভয়ের দিকে তাকিয়ে দেখে অভয় রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে ওর দিকে। অভয়ের হঠাৎ রেগে যাবার কারন প্রিয়া বুঝতে পারছে না। অভয় কিছুক্ষন প্রিয়ার সাথে ডান্স করার পর মাঝখান থেকে প্রিয়ার হাত ছেড়ে দিয়ে চলে যায় ডান্স ফ্লোর থেকে । হঠাৎ এমন কান্ডে প্রিয়া অবাক। অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে অভয়ের যাবার দিকে। যারা ডান্স করছে তারা প্রিয়ার দিকে তাকিয়ে আছে । হঠাৎ অভয়ের চলে যাবার কারনটা ওরা বুঝতে চেষ্টা করছে।

রাহিল: এই অভয়টা কখনোই ভালো হবে না।.......[ মনে মনে ]

প্রিয়ার মনের মধ্যে কিছুটা রাগ অনুভব হচ্ছে । ও তো চাই নি অভয়ের সাথে ডান্স করতে। তাহলে অভয় ওকে এভাবে অপমান করল কেন? 

প্রিয়া ডান্স ফ্লোর থেকে নেমে একটা টেবিলের সামনে এসে দাঁড়ায়। সেখানে Whisky এর বোতল রাখা ছিল। প্রিয়া বোতলের ডাকনা সরিয়ে একটা গ্লাসে  whisky ঢেলে  নিশ্বাস বন্ধ করে খেয়ে নিল। প্রথমে খারাপ লাগলেও পরে বার মজা পেয়ে যায়। আরেক প্যাগ খেয়ে ন্যায় প্রিয়া । পরা পর চার প্যাগ খেয়ে ফেলে। এবার প্রিয়ার নেশা চড়ে বসলো। অভয়ের চোখ‌ হঠাৎ করে প্রিয়ার উপর পরাতে অভয় দেখে প্রিয়া ঢোকে ঢোকে Whisky খেয়ে যাচ্ছে। 

প্রিয়ার নেশা হয়ে গেছে। পা কাঁপছে। মুখে বাকা হাসি। অভয় প্রিয়ার কাছে এসে হাত থেকে মদের গ্লাস নিয়ে নিল। 

প্রিন্স অভয়: What is This Priya?......[ রেগে ]

প্রিয়া: This is a thenga.....[ মাতাল কন্ঠে বলেই হাসতে লাগলো ]

প্রিন্স অভয়: What???

প্রিয়া: You Know অভয় তোমাকে একটা জিনিস দেখাবো তুমি দেখবে?.........[ মাতাল কন্ঠে হেসে বললো ]

প্রিন্স অভয়: no....।

প্রিয়া: তুমি না দেখলেও আমি তোমাকে দেখাবোই....[ বলেই ডান্স ফ্লোরে চলে গেল ]

প্রিয়া জোরে চিল্লিয়ে বললো।

প্রিয়া: ডান্স অফ......এখন শুধু আমার ডান্স হবে....[ মাতাল কন্ঠে ]

সবাই প্রিয়ার দিকে তাকিয়ে আছে । টিনা,রিমি,সানি,রুমকি,বিক্কি,স্যাম হা করে তাকিয়ে আছে প্রিয়ার দিকে। 

টিনা: প্রিয়া ড্রিঙ্ক করেছে....... [ অবাক হয়ে ]

রিমি: আমার তো বিশ্বাসই হচ্ছে না এটা....।

সানি: একা একা করেছে? নাকি কেউ জোর করে করিয়েছে?

রুমকি: এটা কিভাবে বললো?

বিক্কি: দেখ কেমন পাগলামি করছে প্রিয়া।

টিনা : হ্যাঁ তা তো দেখতেই পাচ্ছি। মনে হয় চার প্যাগের বেশি খেয়েছে।

রিমি: হুম।

প্রিয়া ডান্স ফ্লোরে উঠে একা একা ডান্স করতে লাগলো। 

মিউজিক অন....

Ah ah ah ah 

Ah ah ah ah 

Ah ah ah ah 

Ah ah ah ah 

I always knew you were the best 

The coolest girl I know 

So prettier than all the best 

The star of my show 

So many times I wished 🎶🎶🎶🎶🎶🎶...

You'd be the one for me 

But never knew you'd get like this

Girl what you do to me

You are who I am thinking of 🎶🎶🎶🎶🎶🎶

Girl you are not my runner up

And no matter you are always number one..

My prize possession

One and only 🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶......

Adore ya girl I want ya

The one I can not live without

That's you that's you 

My favourite my favourite 

My favourite my favourite girl 

My favourite girl 🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶.....

You're used to going out your way

To impress that's Mr wrongs

But you can be your self with me

I will take you as you are 🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶.

I know they said believe in love

It is a dream that's can not be real

So girl let's write a fairelytale

You show em how we fell

You are who I thinking of 🎶🎶🎶🎶....

Girl you aren't my runner up

And no matter you are always number one..

My prize possession 

One and only 🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶.........

Adore girl I want ya 

The one I can not live without 

That's you are that's you 

You are my special little lady 

That one makes me crazy 🎶🎶🎶🎶.....

Of all the girls l have ever known 

It's you it's you 🎶🎶🎶🎶🎶........

My favourite my favourite

My favourite my favourite girl

my favourite girl

Baby it's you 🎶🎶🎶🎶🎶🎶........

My favourite my favourite

My favourite my favourite girl 

My favourite girl

You take my breath away 

With everything you say

I just wanna be with you 🎶🎶🎶🎶🎶🎶.....

My baby my baby my baby oh 

Promise to play no games 

Treat you no other way 

Than you deserve cause you're the girl of my dreams 🎶🎶🎶🎶🎶............

My prize possession 

one and only 

Adore ya girl I want ya 

The one I can not live without 

That's you that's you 🎶🎶🎶🎶🎶🎶....

You are my special little lady

The one that make me crazy 

Of all girls I have ever known

It's you you it's you 

My prize possession

One and only .....🎶🎶🎶🎶🎶🎶🎶

A...A ...A ...A..

[ ইংলিস Song 😎 ].......

গানের তালে মাতাল অবস্থায় প্রিয়া খুব ডান্স করেছে। সবাই প্রিয়ার সাথে সমান তাল মিলিয়ে ডান্স করছে। অভয় দূরে দাঁড়িয়ে প্রিয়ার ডান্স দেখছে আর রাগে ফুলছে। ডান্স করার এক পর্যায় প্রিয়ার হাতের দাগে লাগানো বেসলাইট না খুলে পড়ে যায়। প্রিয়ার সেদিকে খেয়াল নেই। রাহিলের চোখ প্রিয়ার হাতের উপরে পড়ে। রাহিল এটা দেখে সঙ্গে সঙ্গে অভয়ের কাছে গিয়ে বলতে লাগলো।

রাহিল: অভয় প্রিয়া কে এখান থেকে নিয়ে যা। প্রিয়ার হাতের দাগটা দেখা যাচ্ছে। জ্যাক,স্যাম,এলিনা ওরা যদি দেখে ফেলে তাহলে বুঝে যাবে প্রিয়াই সেই মেয়ে । 

প্রিন্স অভয়: ওকে তুই এই দিকটা দেখ আমি প্রিয়া কে এখান থেকে নিয়ে যাচ্ছি।

রাহিল: হুমম.. গো.....।

অভয় রাহিলের সাথে কথা বলে ডান্স ফ্লোরে এসে দেখে প্রিয়া সেখানে নেই। অভয় চার দিক তাকিয়ে দেখে প্রিয়া ডান্স ফ্লোরের আসে পাশে নেই। এবার অভয় ঘাবড়ে যায়। চিন্তিত হয়ে চার দিক ভালো করে খুঁজতে থাকে । এলিনা অভয়কে ফলো করছে। এলিনার কাছে মনে হচ্ছে অভয় কাউ কে খুঁজছে। অভয় এবার হল রুম থেকে বাহিরে বের হয়ে আসে। বাহিরে বের হবার পর আলেটু এগিয়ে গিয়ে দেখে এক জোড়া জুতো সেখানে ফালান। অভয় হাটু গেড়ে বসে জুতো হাতে নিয়ে স্মেইল ন্যায় ।

প্রিন্স অভয়: হ্যাঁ! এটা প্রিয়ার জুতো। জুতো থেকে প্রিয়ার স্মেইল আসছে। তার মানে প্রিয়া আসে পাশেই কোথাও আছে। 

অভয় উঠে দাঁড়িয়ে কলেজের জঙ্গলের দিকে হাঁটতে লাগলো।



চলবে...!!!

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url