বৃষ্টি ভেজা রাত - রোমান্টিক ভালবাসার গল্প । পর্বঃ ০১

 

বৃষ্টি ভেজা রাত - রোমান্টিক ভালবাসার গল্প । পর্বঃ ০১

বৃষ্টিভেজা রাত 🌌💦

Araisa Arin Mohua

পর্বঃ ০১



ঘুমিয়ে ছিলাম হঠাৎ আম্মুর চেঁচামেচি শুরু হয়ে গেল 😪 কত সুন্দর একটা সপ্ন দেখছিলাম 😌........


আম্মু: কিরে আদু তুই কি উঠবি না.....আজ নাহ তোর অফিসের প্রথম দিন...... সেই কখন থেকে পড়ে পড়ে ঘুমাচ্ছিস😠


আদিবা: ওহ আম্মু তুমি আমায় এখন ডাকছো😕 আগে ডাকলে না কেনো 🙃বড্ড দেরি হয়ে গেল 😪


আম্মু: এখন সব আমার দোষ তাই না 😤 তোকে তো সেই আধ-ঘন্টা যাবত ডাকছি উঠছিলিই না তো😤 যা তাড়াতাড়ি রেডি হয়ে নে


আদিবা: ওকে 😁😘


ওহ আমি তো আমার পরিচয়টা ই দিতে ভুলে গেছি 😁

আমি আদিবা চৌধুরী 😎 ডাক নাম আদু😋 আমি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান 😊 বাবা-মায়ের একমাত্র মেয়ে 😊 খুব আদরের আর একটু বেশি ই দুষ্ট😁 দুষ্ট হওয়ার কারণে বাবা আমায় একটু বেশি ই ভালোবাসে😁😋

বাকি কথা গল্পেই জেনে যাবেন 😁 এখন গল্পে আসা যাক 😊


অন্যদিকে, আদ্রিয়ান বাবা খেতে আয় লেইট হয়ে যাবে তো ।

আসছি মাম্মাম......


আদ্রিয়ানের বাবা: কিগো তোমার ছেলে কোথায়? আজকে না ওর অফিসের প্রথম দিন.. প্রথম দিন টা ও কী লেইটে যাবে 🤨


আদ্রিয়ান: নো ড্যাড.....😎 আমি আদ্রিয়ান আবরার😎 সবকিছুতেই First🤠....আদিরাজ আবরারের ছেলে আমি 😎 So late বলে আমার ডিকশনারিতে কিছু নেই....I am always first all situations 🤠


আদ্রিয়ানের বাবা: সেটা আমি জানি my dear son😊... তবু ও তুমি যেহেতু আমার industry এর MD তাই তোমাকে তো আজ একটু তাড়াতাড়ি যেতেই হবে তাই না 😊 


আদ্রিয়ান: ওকে ড্যাড😘 No tension.....

আদ্রিয়ান খাবার খেতে খেতে বাবার সাথে কথা বলে অফিসের জন্য বের হলো গাড়ি নিয়ে.......


ঐদিকে, আদিবা ও খেয়ে বেরিয়ে গেলো ইসকুটি নিয়ে...... অফিসে যাওয়ার জন্য........


হঠাৎ রাস্তায় একটা সমস্যার জন্য আদিবার মাথাটা রাগে😡 420 হয়ে গেল.........



আদিবা অফিসের জন্য ইসকুটি নিয়ে বের হওয়ার ঠিক কিছূ   সময় পরই....... হঠাৎ আদিবার ইসকুটির সাথে এক বড় গাড়ির ধাক্কা লেগে যায়.......


আদিবা: কোন বজ্জাত হনুমান রে😡...... আমার এতো সুন্দর কিউট-মিউট ইসকুটি টাকে ধাক্কা মারলো..... বেরিয়ে আয় হারামজাদা.......


আদ্রিয়ান: Excuse Me-Medam.......

কী সব যা-তা কথা বলছেন...

আমার গাড়ি ঠিক ভাবেই চলছিলো.... আপনিই হঠাৎ উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন আমার গাড়ির সামনে.....!!!....

So, নিজের দোষটা স্বীকার করতে শিখুন....!!!.....


আদিবা: শুনুন মি: রাস্তা টা আপনার একার না Even কেনা ও নয়..... তাই আমি যেখানে ইচ্ছে যেমন ভাবে ইচ্ছে আমার ইসকুটি নিয়ে চালাবো+বের ও হবো


আদ্রিয়ান: ওকে যেভাবে আপনার ইচ্ছে করে ঠিক তাই ই করুন....

আপনার সাথে ঝগড়া করার কোনো ইচ্ছে ই নেই আমার...!!!....


আদিবা: কী বললেন আপনি আমি ঝগড়া করি...😠 ঝগড়ুটে আমি.....


আদ্রিয়ান:ও মা😮 আমি কখন বললাম আপনি ঝগড়ুটে......

তার মানে আপনি স্বীকার করেছেন যে আপনি ঝগড়ুটে............


আদিবা: ঠিক করে কথা বলুন আপনি জানেন আমি কে..... আপনার কী অবস্থা আমি করতে পারি (একটু_ভাব_নিয়ে)🤠


আদ্রিয়ান: আমার কোনো ইচ্ছে ই নেই আপনার মতো একজন ঝগড়ুটে পাবলিকের সাথে পেচাল পারার......


আদিবা: আপনাকে আমি দেখে নিবো..."বজ্জাত সাদা হনুমান"... কোথাকার......


আদ্রিয়ান: ইডিয়েট কোথাকার..... মুখের ভাষার কী শ্রী.....!!!.....


আদিবা: আপনাকে তো আমি 😡😠


আদ্রিয়ান: কী..... আমাকে কী কিস করবেন 🙄🙈😂

বলেই আদ্রিয়ান গাড়ি চালানো শুরু করলো.........


আদিবা: খাটাস হনুমান ..... লুচু কোথাকার.....সব ছেলেই এক........

বজ্জাত টার পাল্লায় পড়ে আমার আজ দেরি ই হয়ে গেল....

আদিবা ও ইসকুটি নিয়ে চলে গেল অফিসের কাজে.....


ম্যানাজার: Hello Sir..! 

Welcome to your office.....


আদ্রিয়ান: Thank you!..!...


 ম্যানাজার: চলুন স্যার আপনার কেবিনে যাওয়া যাক ....


আদ্রিয়ান: হুমমমম চলুন.....

ওকে তাহলে আপনি যান প্রয়োজনে আপনাকে ডেকে নেবো.....


ম্যানাজার: ওকে স্যার.....


আদ্রিয়ান: আচ্ছা শুনুন 


ম্যানাজার: জ্বি স্যার বলুন।


আদ্রিয়ান: আমার পার্সোনাল সেক্রেটারী কে একটু পাঠিয়ে দিয়েন....


ম্যানাজার: Sorry Sir.....

উনি তো এখন ও আসে নি...


আদ্রিয়ান: What!!!!......

অফিসের একটা নির্দিষ্ট সময় আছে......সে কী জানে না.......


ম্যানাজার: স্যার উনি আজকে ই জয়েন করবে.... হয়তো কোনো সমস্যার কারণে লেইট হচ্ছে......


আদ্রিয়ান: দয়া করে আপনি কারো জন্য সাফাই করবেন না......

এরকম মানুষ কেনো রাখেন.... যাদের মধ্যে সময়ের কোনো মূল্য নেই.....


ম্যানাজার: উনি খুব টেলেন্ট.... এবং দক্ষতা ও খুব ভালো যার কারণে আমরা তাকে আপনার পার্সোনাল সেক্রেটারী রেখেছো.....


আদ্রিয়ান: ওকে.... উনি আসলে আমার কেবিনে..... উনাকে পাঠাবেন.....


ম্যানাজার: ওকে স্যার। তাহলে এখন আমি আসি....


আদ্রিয়ান: ওকে।


দেরি হয়ে যাওয়ার কারণে তাড়াহুড়ো করে অফিসের ভিতরে ঢুকছিলাম.....

হঠাৎ ম্যানেজার এর আগোমন ঘটলো.....


ম্যানেজার: ব্যাপার কি!!....আজ প্রথম দিন ই এতো লেইট আপনার.....MD sir ওয়েট করছে আপনার জন্য.... তাড়াতাড়ি যান..... 


আদিবা: সরি স্যার.... আসলে রাস্তায় এক হনুমানের সাথে দেখা হয়েছিল তাই দেরি হয়ে গেছে.....


ম্যানেজার: রাস্তায় হনুমান আসলো কোথা থেকে 🙄


আদিবা: পরে বলবো স্যার আপনাকে....এখন বসের কাছে যাই....


ম্যানেজার: ওকে তাড়াতাড়ি যাও স্যার খুব খেপে আছে....


আদিবা: এই আদিবার কাছে সব খেপা মানুষ ই শান্ত হয়ে যায় (একটু ভাব নিয়ে)😌


ম্যানেজার: ওকে তাহলে তুমি তোমার কেলমা দেখিয়ে আসো...All the best...😁


আদিবা: ওকে।

আদিবা চলে গেল বসের কেবিনে...


আদিবা: May i come in sir...!.....


আদ্রিয়ান: Yes..! Come in.....

আদ্রিয়ান চেয়ারের ঠিক উল্টো দিকে ফিরে ছিলো যার কারণে এখন ও দেখে নি আদিবাকে.....


আদ্রিয়ান: উল্টো দিকে ফিরে ই ফিরে বললো তো মিস প্রথম দিন ই এতো লেইট...


আদিবা: আসলে স্যার রাস্তায় এক হনুমানের সাথে দেখা হয়েছিল তাই দেরি হয়ে গেছে......


আদ্রিয়ান হনুমানের কথা শুনে সামনে ফিরে বললো হনুমান 🤨


আদিবা: জ্বি স্যারররররররররররররররর.........


আদ্রিয়ান: আপনি.................


আদিবা: আপনি এখানে আমার অফিসে সেটাও আবার আমার বসের কেবিনে বসের চেয়ারে.......

সাহস দেখে অবাক হচ্ছি........


আদ্রিয়ান: Listen.......


আদিবা: আমি কিছু শুনতে বা বুঝতে চাই না আপনি এই মুহূর্তে বের হন. ।।।।

সুন্দরী মেয়ে মানুষ দেখলে ই পিছু নিতে হয় তাই না......


আদ্রিয়ান: শুনুন.......


আদিবা: আবার কথা....বের হন বলছি....


আদ্রিয়ান এবার রেগে গিয়ে বলল Shut-up your mouth 😠


আদ্রিয়ান: তুমি যদি তোমার মুখটা বন্ধ করো.....Can I do explain something.....


আদ্রিয়ানের রেগে যাওয়া মুখ দেখে অটোমেটিক আদিবা চুপ হয়ে গেল 😶


আদ্রিয়ান: আসার পর থেকেই বকবক করে মাথা খারাপ করে দিচ্ছে......

প্রথমত, আমি এই কোম্পানির MD...

Mean by Boss....okh 

I am your Boss & you r my personal secretary....okh..... Understand....


আদিবা কথা টা শোনার পর ই  420 ভোল্টের শক খাওয়ার মতো অবাকের সপ্তম পর্বে চমকে উঠলো 😮


আদ্রিয়ান: তো কী যেনো বলছিল আমি বজ্জাত সাদা হনুমান.... সুন্দরী মেয়ে মানুষ দেখলে ই পিছু নেই......

কী তাইতো...... বলতে বলতে আদ্রিয়ান  একেবারে আদিবার অনেক টা কাছাকাছি চলে আসে..... এটা দেখে আদিবা কিছু টা ঘাবড়ে যায় আর পিছনে যেতে থাকে....এক পর্যায়ে দেয়ালের সাথে চেপে যায়... আদ্রিয়ান আর আদিবার মধ্যে জাস্ট কিছু জায়গা ফাকা...... তন্মধ্যেই আদিবা চোখ বন্ধ করে ফেলল....এটা দেখে আদ্রিয়ান বেশ মজা ই নিচ্ছিল....

কিছুক্ষণ এভাবে চুপ থাকার পর আস্তে আস্তে আদিবা চোখ খুলে দেখে আদ্রিয়ান মিট মিট করে হাসছে।

এটা দেখে আদিবা একটু লজ্জা ও পায় আবার কিছু টা বিরক্ত ও লাগল... তারপর আদ্রিয়ান হাসতে হাসতে চেয়ারে গিয়ে বসলো আর বলল.... 


আদ্রিয়ান: যেহেতু তুমি আমার পার্সোনাল সেক্রেটারী তাই..... এতো আপনি-আজ্ঞে আমি বলতে পারবো না.....এবং আমি যা বলবো তুমি তাই করতে বাধ্য......

আদ্রিয়ান কথাগুলো বলছিলো আর ভ্রু  নাচাচ্ছিল.....

আদ্রিয়ানের ভ্রু নাচানো টা আদিবার বেশ ভালো লাগলো.... এভাবে অনেকক্ষণ ই তাকিয়ে থাকার পর আদ্রিয়ান একটু কেশে বলল, আমি জানি আমি দেখতে হ্যান্ডসাম 😎 এরকম ডেশিং লুক তো আর যার-তার হয় না....এখন কাজ করো আমাকে পরে দেখো.....


আদিবা: কথাগুলো শুনে বিরবির করে বলল.....এহহহহহহ আইছে আমার হিরোআলম😏.... আবার বলে ডেশিং লুক....যেই না চেহারা নাম রাখছে পেয়ারা......সরি থুক্কু আদ্রিয়ান.....😏


আদ্রিয়ান: আমাকে নিয়ে ভাবা শেষ হলে এবার কাজ করো প্লিজ.....


আদিবা: কী কাজ স্যার...!...


আদ্রিয়ান: আলসেমি ভাব ছেড়ে ছেড়ে বলল  আমার জন্য এক কাপ ব্লাক স্ট্রোং কফি....... ভালো করে বানাবে আর ১ চামচ চিনি......Now go.......


আদিবা:What......!!!...... স্যার কীসব বলেছেন আমি কফি বানাবো......


আদ্রিয়ান কিছুক্ষণ এদিক-ওদিক তাকিয়ে বলল এখানে আমি আর তুমি ছাড়া কাউকে দেখছি না তো 🙄 

Obviously তোমাকে ই আমি কথা টা বলছি.......


আদিবা: স্যার আমি আপনার পার্সোনাল সেক্রেটারী ওরফে পি.এ

আপনার পার্সোনাল চাকর বা বউ নই.....(দাঁতে দাঁত চেপে আদিবা কথাগুলো বলল)....


আদ্রিয়ান: তোমাকে যা বলেছি সেটা করবে নাকি আমি অন্য স্টেপ নিবো.... বলতে বলতে আদিবার সামনে আগালো....


তখন আদিবা মনে মনে বলল কফি বানানো টাই শ্রেয়.... নয়তো আবার কি লুচুগিরি করে তার ঠিক নেই.....


আদিবা: ওকে স্যার যাচ্ছি তো এভাবে তেড়ে আসার কোনো কারণ নেই 😏


আদ্রিয়ান: আমাকে কথা শুনানো তাই না....এবার হারে হারে টের পেয়ে যাবে তুমি....

আদ্রিয়ান আবরার এর সাথে উঁচু গলায় কথা বলা...

তোমার কী হাল করি সেটা জাস্ট দেখো......


আদিবা: আমাকে দিয়ে কফি বানানো..তাই নাহ ওকে ওয়েট কী সুন্দর স্পেশিয়াল কফি তোমায় খাওয়াই বুঝবা চান্দু.....

আদিবা কফিতে লঙ্কার গুড়ো মিশিয়ে নিলো......আর সেই কফি আদ্রিয়ানের জন্য নিয়ে গেল.....


আদিবা হাসি-মুখে কফি নিয়ে আসায় আদ্রিয়ান একটু সন্দেহ হলো 🤨


আদিবা বলল স্যার আপনার জন্য স্ট্রোং কফি......😁

মনে মনে বলল খাও চান্দু খাও......

Special coffee for special person 😁


আদ্রিয়ান বলল কফি টা তুমি খাও.....

কফি খাওয়ার কথা শুনে আদিবার চোখ বড় বড় হয়ে গেল.....


আদিবা বলল.....


আদিবা: না স্যার এটা আপনার জন্য...... আমি তো কফি খাই না......


তখন আদ্রিয়ান চোখ রাঙিয়ে বলল আমি বলেছি তুমি এটা খাও.....

এবং আমার সামনে বসে এখন খাবে.....Now drink......


আদিবা বাধ্য হয়ে কফি টা মুখে দিলো..... একটু খাওয়ার পর ই ঝালে আদিবার পুরো মুখ লাল হয়ে গেল.....

আর চিল্লায়ে বলতে লাগলো স্যার ঝাল ঝাল..... স্যার পানি দিন প্লিজ...!!!.....


এটা দেখে আদ্রিয়ানের সন্দেহ টা পুরো ক্লিয়ার হয়ে গেল.....

তবে আদিবার চোখ মুখ লাল হয়ে যাওয়ার কারণে আদ্রিয়ানের একটু খারাপ লাগলো....তখন পানির গ্লাস টা আদিবার সামনে ধরার সাথে সাথে ঢোক-ঢোক করে সব পানি খেয়ে ফেলল.....তবুও বার বার বলতে লাগলো স্যার ঝাল কমছে না প্লিজ কিছু করেন..... আমি আর পারছি না 😖😭

 তখন আদ্রিয়ান কোনো উপায় না পেয়ে আদিবার ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে দিলো 😳

অনেকক্ষণ এভাবে থাকার পর দু'জনের হুশ এলো......


আদিবা লজ্জায় ওখান থেকে বের হয়ে জলদি নিজের ডেস্কে গিয়ে বসলো আর কিছুক্ষণ আগের কথা ভেবেই লজ্জায় যেনো পারলে পাতালে চলে যেতো......

আদিবা মনে মনে বলল কফি বানিয়ে নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মারলাম 😢


ঐ দিকে আদ্রিয়ান ও..........................




চলবে...!!!

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url